মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সমীপে: কাজী সফি আবেদীন

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত এপ্রিল ২, ২০২০
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সমীপে: কাজী সফি আবেদীন

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী…
আশা করি হোম কোয়ারেন্টাইনে ভালো আছেন৷

আমরা ভালো নেই, কারণ…
পরিবার পরিজন থেকে হাজার হাজার মাইল দূরে, চতুর্দিকে হাহাকার, ভয় আর আতঙ্ক, আশেপাশে মৃত্যুর মিছিল, যেন থামতেই চাইছেনা, এমনিতে’ই আগ থেকে আপনার মন্ত্রীদের ভৎসনা তো আছে’ই, এসব গেখার পর নিজেকে ভিনগ্রহের বাসিন্দা মনে হচ্ছে৷

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী…
আমরা ভালো নেই…
ইচ্ছে থাকলেও দেশে যেতে পারবোনা, এয়ারপোর্টে আপনার আদরের আমলারা আমাদেরকে দেশের মানুষ মনে করেনি কখনো’ই, (যদিও মাঝে মধ্যে আপনারা আমাদেরকে রেমিটেন্স যোদ্ধা বলে তৈল মর্দন করে থাকেন, তৈল মর্দন না করলেও আমরা বৈধ পথে’ই রেমিটেন্স পাঠাই, কারণ আমরা আপনাদেরকে আমাদের অংশ মনে করি, আমাদের দিল বড়) তারা আমাদের কে বিভিন্ন হয়রানি করে, প্রবাসীদেরকে অশিক্ষিত মূর্খ বলে সম্বোধন করে এবং সেই চোখে দেখে৷

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী…
এই যে আমলারা যখন এই অশিক্ষিত! প্রবাসীদের কে এয়ারপোর্টে আঁটকায়, তারা কিন্তু সচেতনতা অবলম্বনের জন্য আঁটকায়না, চেকআপের জন্য আঁটকায়না, তারা এই মূর্খদের! কাছে ভিক্ষা চাওয়ার জন্য আঁটকায়, শুনেছি পাঁচশত টাকা ভিক্ষার বিনিময়ে একটি করোণা টেস্ট সার্টিপিকেট হাতে ধরিয়ে দিয়ে অনেক কে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল৷

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী…
মনে অনেক ভয়, অনেক ব্যাথা, অনেক কষ্ট হচ্ছে, একা একা কান্না করতেছি, দেশে মারা গেলে হয়ত দু চারজন আত্মীয় স্বজন মিলে জানাযা ও দাফন দিবে, কবর টা দেশের মাটিতে হবে, সময় সুযোগে কাছের মানুষগুলো কবর জিয়ারত করবে, দো’আ দরুদ পাঠ করবে, কবরে আত্মীদের দো’আর আশায় চেয়ে থাকতে পারবো, কিন্তু প্রবাসের মাটিতে এই আশাটুকুও করতে পারিনা৷

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী…
প্রবাসীরা মারা গেলে, কেউ কারো লাশ দেখবেনা, দাফন কাপন জুটে কিনা সেটাও জানা নেই, মরুভূমির কোথাও মাটি চাপা দিয়ে দিবে, মরু ঝড়ে তার নিশানাও একদিন বিলিন হয়ে যাবে, মরার সময়ও একটা আক্ষেপ নিয়ে মরতে হবে আপনার মন্ত্রীদের ভৎষনা নিয়ে৷

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী…
আপনি জানেন? দেশের এমন করুণ পরিস্থিতিতেও এই প্রবাসীরা দেশের মানুষের অসহায়ত্বের পাশে দাড়াচ্ছে, (যদিও প্রবাসীরা বর্তমানে কর্মহীন) বিভিন্ন ইভেন্ট খুলে যার যার সাধ্য মত দেশের বিপদগ্রস্থ মানুষদের পাশে এই প্রবাসীরা সর্বাগ্রে জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে৷

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী…
শুনেছি, আপনি নাকি দেশের গরীব মানুষদের জন্য ত্রাণ বাজেট করেছেন? কিন্তু একবার কি সরেজমীন ঘুরে দেখেছেন? আপনার মন্ত্রী আর দলের লোকেরা সেই টাকা ও ত্রাণ সামগ্রী গরিবের দরজায় কতটুকু পৌঁছাচ্ছে?

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী…
আপনার কর্মীরা এতই নির্লজ্জ যে, তারা ৮ টাকা দামের একটি সাবান বিলি করতে গিয়ে ৪/৫ জন মিলে গ্রুপ সেল্ফি তুলে প্রচার করতেছে, কিন্তু গ্রামাঞ্চলের অভাবি মানুষদের পাশে আপনার মন্ত্রী, এমপি, ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার ও নেতা কর্মীদের কেউ নেই৷ যারা মুখে মুক্তি যুদ্ধের কাহিনি শুনাতো, নিজেদেরকে মুক্তিযোদ্ধা বলে গর্ব করতো, তারা আজ অমানুষের গর্তে লুকায়িত, তারা কেউ নেই আপনার ও আপনার প্রজাদের পাশে৷

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী…
দেশের দাড়ি টুপি ওয়ালা মানুষগুলো আপনার জনগনের সেবা করতেছে নিঃস্বার্থ ভাবে, এরাই আপনার প্রকৃত প্রজা, এরাই প্রকৃত দেশ প্রেমিক, আপনি এদের কে আর কষ্ট দিয়েননা, অবহেলা করবেন্না, এদের কে মুল্যায়ন করুন, এদের কে কাছে ডাকুন, তাদের কথা শুনুন, ভালোবাসা দিন, ভালো আশা গ্রহণ করুন, পারলে প্রবাসীদের কে বুকে টেনে নিন, তাদের সুখ দুঃখের কথা শুনুন, দেখবেন তারাও আপনাকে ভালোবাসবে৷

দেশ ভালো থাকুক, দেশের মানুষ ভালো থাকুক৷
এই শুভ কামনায় একজন দুঃখি প্রবাসী৷

কাজী সফি আবেদীন

Sharing is caring!