করোনার করুণা

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত এপ্রিল ৫, ২০২০
করোনার করুণা

মুহাম্মদ গোলাম সারোয়ার সিরাজী

নভেল কভিড ১৯ করোনা ভাইরাস । এ ভাইরাস দেখতে মুকুটের মত, তাই সাইন্টিস্টরা নাম দিয়েছে করোনা । করোনা অর্থ মুকুট। ভাইরাসের রাজ্যে করোনার চেয়ে বড় রানী ছিলো বলে মনে হয়না । পৃথিবী এখন করোনার গ্রহণকাল। কবে অবদি গ্রহণ বন্ধ হবে করোনা নিজেও জানেনা। জানেন করোনার স্রষ্টা মহান আল্লাহ তায়ালা ।

ইতিমধ্যে করোনা আক্রান্ত করলো প্রায় বারো লক্ষ বনি আদমকে । যারা মৃত্যুর বিছানায় মহান বিচারকের বিচারের অপেক্ষায় । প্রায় সত্তর হাজার বনি আদম মারা গেলো করোনার ছোবলে । করোনা থেকে সত্বর মুক্তি মেলার কোনো সাইন্টিস্ট যুক্তি পাওয়া যাচ্ছে-না । তাওবা – ইস্তেগফারে মিলবে মুক্তি ইনশাআল্লাহ

পৃথিবীর বড় খেলার মাঠ জার্মানিতে । সেটি এখন হাসপাতাল । করোনা আক্রান্ত রোগিদের । পৃথিবীর বড় বড় মদের কোম্পানি এখন জীবাণু নাশক সেনিটাইজার বানাতে ব্যস্ত । মদের বার এলাকায় পিনপতন নিরবতা । নাইটক্লাব – ফিল্ম – ব্লু ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি বন্ধ । খদ্দেররা মৃত্যুর অপেক্ষায় । একযোগে সারা পৃথিবীর সকল নষ্টামির দরজায় তালা ৷ এটা কি করোনার করুণা নয়?

গণতন্ত্রের সমাজে যারা মানুষকে পিষে মারতো বুটের তলায়, বনি আদম হত্যার প্রতিযোগিতার আয়োজন করতো ; তারা আজ করুণার ভিখিরি । কে থামাতো আফগানিস্তান – ইরাকে লক্ষ লক্ষ বনি আদম হত্যাকারি আমেরিকা, বৃটেন, জার্মানি, ফ্রান্স কে? কার এতো শক্তি আছে । দেখুন বিশ্বসভার মোড়লরা । দেখো জাতিসংঘ নামে বনি আদম হত্যাকারি সংঘ । চীন – রাশিয়া থামাও করোনা । তোমাদের রাজত্ব না কি মেঘ ও নিয়ন্ত্রণ করতো? করোনার করুণা ।

জাপান থেকে আমেরিকা, উত্তর দ্রাঘিমা থেকে দক্ষিণ দ্রাঘিমা তোমাদের নির্যাতন সীমাহীন সহ্য করেছে ; এবার একটু ঘুরে দাঁড়িয়েছে । পারলে থামাও । নাসা কি বলে । সেও ফেইল । তবে, মহাকাশ গবেষণার নামে মহা প্রতারণা বন্ধ করো ।

কিছু দিন আগেও আযান বন্ধের প্রতিযোগিতা ছিলো । আজ ফ্রান্স – জার্মানি – স্প্যান আযানের আয়োজনে ব্যস্ত । করোনার করুণা । বন্ধ মসজিদ খুলে দিলো । আমেরিকার হোয়াইট হাউজ, বৃটেনের বাকিংহাম প্যালেস মসজিদ হতে বেশী দূর নয় । হিজাব নিয়ে যাদের এলার্জি, তারা আজ হিজাব (মাক্স) লাগিয়ে মিটিং করছে । দেখলে হাসতে চাই । করোনার করুণা ।

ধ্বনিরা ভিখিরা হবে, গরীবেরা হক বুঝে নিবে । চোর- বাটপার – বদমাইশরা পালানোর সময় এসেছে । করোনার করুণা ।

মসজিদ বন্ধ । অসুবিধা নাই । কয়দিন বাদে মসজিদ বেড়ে যাবে হাজার লক্ষ গুণ । পৃথিবীর প্রতি কোনা থেকে দৈনিক পাঁচ বার “আল্লাহু আকবর” এর ধ্বনি আসবে । সব জায়গায় আযান -নামাজ সবি হবে, ইনশাআল্লাহ

মুহাম্মদ গোলাম সারোয়ার সিরাজী
নির্বাহী পরিচালক
সিরাজী সেন্টার

Sharing is caring!