শোকসভায় মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীবের বেফাঁস মন্তব্য: সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড়

আওয়ার বাংলাদেশ ২৪
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০
শোকসভায় মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীবের বেফাঁস মন্তব্য: সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড়

আওয়ার বাংলাদেশ নিউজ:

গতকাল ২১সেপ্টেম্বর বারিধারা মাদ্রাসায় অনুষ্ঠিত ‘আল্লামা শফী রহ. এর শোকসভা’য় বেফাক ও হাইআতুল উলয়ার ভবিষ্যত নেতৃত্ব প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে মাওলানা জুনায়েদ আল হাবিব বলেন,
“পরিষ্কার ভাষায় বলতে চাই- বেফাক, হাইয়াতুল উলইয়া, হেফাজতে ইসলাম, খতমে নবুওয়তের বিষয়ে আজকে এই মঞ্চ থেকে যেই সিদ্ধান্ত হবে, সেই সিদ্ধান্তই কার্যকর হবে। সেই সিদ্ধান্তই কার্যকর হবে। এর বাহিরে কেউ দরজা বাদ দিয়া জানালা দিয়া প্রবেশ করতে যাবেন, এর বাহিরে কেউ বাঁকা পথে হাটতে যাবেন, আপনারাও দালাল গোষ্ঠীর কাতারে নাম লেখা হবে।”

মাওলানা জুনায়েদ আল হাবিবের এই বেফাঁস মন্তব্য নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড় বইছে। মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীব ছাড়াও অধিকাংশ বক্তা এই শোকসভায় হেফাজত ও বেফাক-হাইয়া নিয়ে বক্তব্য দিয়েছেন। আল্লামা শফী রহ. এর শোকসভায় হযরতের জীবনের স্মৃতিচারণ না করে পদ-পদবী নিয়ে ভাগাভাগি করায় অনেকেই এই শোকসভার ধরণ নিয়ে আশ্চর্যবোধ করছেন।

ফেসবুক পোস্টে কেউ কেউ বলেন, শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের অবরোধ পরবর্তী সমাবেশে লাখো ছাত্রজনতাকে মৃত্যুমুখে রেখে লন্ডনে পলায়নকারী মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীব কোন মুখে বড় কথা বলে তা বোধগম্য নয়।
জাতি এদের তামাশাভরা আচরণে ব্যথিত মর্মাহত। নুন্যতম লজ্জাবোধ থাকলে এই চরম বিশ্বাসঘাতক জাতিকে নীতিবাক্য শোনাতে আসতো না।

কওমি অঙ্গণের এক ফেসবুক ইউজার বলেন, দেশের আপামর জনতার প্রাণের সংগঠন হেফাজতে ইসলাম ও বেফাক-হাইয়ার ঠিকাদারি এসব নীতিভ্রষ্ট, ধান্ধাবাজ জুনায়েদ আল হাবীবদের হাতে কারা তুলে দিল? তা জাতির সামনে স্পষ্ট হওয়া দরকার।

Sharing is caring!