জোটত্যাগ করা ইসলামী দলগুলোকে ঝুটা ও আবর্জনা পার্টি বললো বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান

আওয়ার বাংলাদেশ ২৪
প্রকাশিত অক্টোবর ১২, ২০২১
জোটত্যাগ করা ইসলামী দলগুলোকে ঝুটা ও আবর্জনা পার্টি বললো বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান

আওয়ার বাংলাদেশ নিউজ:

পীর সাহেব চরমোনাই নেতৃত্বাধীন ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ ছাড়া বাদবাকি সব ইসলামি রাজনৈতিক দল আওয়ামিলীগ বা বিএনপি জোটে যাওয়া-আসা করেছে।
সম্প্রতি একে একে সব ইসলামী দল বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০দলীয় জোট ত্যাগ করেছে। সর্বশেষ গত ১লা অক্টোবর শুক্রবার রাজধানীতে সংবাদ সম্মেলন করে খেলাফত মজলিস বিএনপি জোট ত্যাগ করেছে। খেলাফত মজলিসের জোটত্যাগের মাধ্যমে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটে আর কোন ইসলামি দল থাকলো না। তবে জামায়াত ইসলামি জোট ত্যাগের কথা বললেও আনুষ্ঠানিকভাবে তারা কোন ঘোষণা দেয়নি।

এর আগে গত ১৪ জুলাই জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ বিএনপি জোট ছেড়ে যায়।

 

ডিবিসি নিউজের এক সাক্ষাৎকারে শরীক ইসলামি দলগুলোর এই জোটত্যাগের প্রতিক্রিয়ায় চরম অপমানকর মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বীর উত্তম।

তিনি বলেন, শুধু জামায়াত নয়, ইসলামি ঐক্যজোট, ইসলামি মজলিস, নেজামে ইসলামি, আরো যেন কী কী পার্টি আছে!এরা তো সুজোগ সন্ধানী, যেখানে পার্লামেন্টে সীট পায়, মন্ত্রীত্ব পায়, সুজোগ সুবিধা পায়, সেটা যদি আওয়ামীলীগ বেশি দিতে পারে, গো টু হেয়ার, বিএনপি বেশি দিতে পারলে গো টু বিএনপি।
এরা হচ্ছে খাবারের পরে জুটা থাকে না? মাছ, মাংস খাওয়ার পর যে ঝুটা আছে! এরা সেই ঝুটা পার্টি, এসব আবর্জনা চলে যাওয়াই বেটার।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বীর উত্তমের জোটত্যাগ করা ইসলামী দলগুলোকে নিয়ে এমন অপমানকর মন্তব্যের পরেও জোটত্যাগ করা সেই ইসলামী দলগুলোর নেতারা কোন প্রতিবাদ বা প্রতিক্রিয়া জানাননি, তারা নীরবতা পালন করে আছেন, অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে যেন সাবেক জোটনেতার এই চরম অপমানকর মন্তব্যে তারা কোনরূপ অপমানবোধ করেননি।
এহেন অপমানকর মন্তব্যের পরও বিএনপিজোট ত্যাগ করা সেই ইসলামী দলগুলোর নীরবতার কারণে সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের নিয়ে নানারকম সমালোচনা চলছে।

প্রসঙ্গ ২০১২ সালে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনের লক্ষ্যে চারদলীয় জোটের পরিসর বাড়িয়ে ১৮ দলীয় জোট গঠন করে বিএনপি। পরে আরো দুটি দল তাতে যোগ দিলে ২০ দল হয়। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ও খেলাফত মজলিস ছাড়াও গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি) ও কয়েকটি দলের একাংশ, যেমন—ইসলামী ঐক্যজোট, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি), ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ), লেবার পার্টি, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এনডিপি) মতভিন্নতার কারণ দেখিয়ে জোট ছেড়ে গেছে।

Sharing is caring!