বাবরি মসজিদ ইস্যুতে শুক্রবার মাঠে নামছে হেফাজতে ইসলাম

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত নভেম্বর ১১, ২০১৯
বাবরি মসজিদ ইস্যুতে শুক্রবার মাঠে নামছে হেফাজতে ইসলাম

আব্দুল কাদের
হাটহাজারী প্রতিনিধি

ভারতের অযোধ্যায় ঐতিহাসিক বাবরী মসজিদের জায়গায় রাম মন্দির নির্মাণে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টর সাম্প্রদায়িক রায়ের প্রতিবাদে আগামী শুক্রবার জুমার পর রাজধানী ঢাকা ও চটগ্রামসহ দেশের সমস্ত জেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হবে।
আজ সংবাদপত্রে প্রেরিত এক যৌথ বিবৃতিতে এই কর্মসূচী ঘোষণা করেছেন, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী ও হেফাজতের মহাসচিব আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী।

বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, বাবরী মসজিদের জায়গা রাম মন্দির নির্মাণের রায়ে মুসলমানরা ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছে। এই রায়ে উপমহাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, শান্তি সৃংখলা বিপন্ন করার সুযোগ তৈরি করে দেয়া হয়েছে। মুসলমানদের সাথে হিন্দু সম্প্রদায়ের নতুন করে দাঙ্গা সৃষ্টির রাষ্ট্রীয় ষড়যন্ত্রের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। পাঁচ শতবৎসরের ঐতিহ্যবাহী বাবরি মসজিদের স্থানে রামমন্দির নির্মাণের রায়ে বিশ্বের প্রতিটি মুসলমানের হৃদয়ে আঘাত করা হয়েছে।

হেফাজত নেতৃদ্বয় আরো বলেন, ভারতের প্রত্নতাত্বিক জরিপের তথ্য অনুযায়ী এখানে কোন হিন্দু মন্দিরের অস্তিত্ব প্রমাণিত নয়। অথচ রাম জন্মভূমির কল্পিত দাবীকে কেন্দ্র করে মসজিদের জায়গাটি মন্দির নির্মাণের জন্যে দিয়ে দেয়া হলো। তারা বলেন, ১৫২৯ সালে নির্মিত প্রায় পাঁচশত বছরের পুরোনো ঐতিহাসিক বাবরী মসজিদটি ১৯৯২ সালে ৬ ডিসেম্বর উগ্রবাদী হিন্দুরা ভেঙ্গে ফেলে। মসজিদ ভাঙ্গার পরপরই ভারতে হাজার হাজার মুসলমানকেও হত্যা করা হয়। আজকে ভারতীয় সুপ্রীম কোর্ট ভেঙ্গে ফেলা বাবরী মসজিদের জায়গায় রাম মন্দির নির্মাণের রায় দিয়ে মুসলিম উম্মাহর সাথে হিন্দুস্তানের যুদ্ধ (গজওয়ায়ে হিন্দ) বাঁধানোর আনুষ্টানিক ঘোষণা করা হলো।

তারা আরো বলেন, মুসলিম বিশ্ব ও সকল শান্তিকামী মানুষ মসজিদের জায়গায় মন্দির নির্মাণ কোনভাবই মেনে নেবেনা। মোদী সরকারের জেনে রাখা উচিৎ যে, আদালতের ঘাড়ে বন্ধুক রেখে জোর করে রায় চাপিয়ে দেয়ার পরিণাম শুভ হবে না। মুসলমানরা তাদের ধর্মীয় প্রতীকসমূহ রক্ষায় জীবনবাজি রেখে লড়াই করে যাবে। তবুও মসজিদের জায়গায় মন্দির নির্মাণ করতে দিবেনা।
তাই আগামী শুক্রবার বাদজুমা বিক্ষোভ মিছিল সফল করার জন্য হেফাজত নেতৃদ্বয় ওলামায়ে কেরাম এবং তৌহিদী জনতার প্রতি আহবান জানান.

Sharing is caring!