ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সৌদিআরব আল খাফজী শাখার দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত অক্টোবর ৬, ২০১৯
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সৌদিআরব আল খাফজী শাখার দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

সৈয়দ বেলালী

দাম্মাম থেকে :

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সৌদিআরব আল খাফজী শাখার দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন  শাখা সভাপতি আলহাজ্ব ফখরুল ইসলাম সুমনের সভাপতিত্বে ও শাখা সেক্রেটারী হাফেজ ইলিয়াছ হোসাইনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয়।

গত ৪ অক্টোবর শুক্রবার বাদ জুমা, আল খাফজীর একটি কোম্পানির মিলনায়তনে দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সৌদিআরব কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি মুফতী আলতাফুর রহমান গাজী।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সৌদিআরব কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আলহাজ্ব আব্দুল হাকিম।
প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্হিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সৌদি আরব কেন্দ্রীয় কমিটির প্রশিক্ষণ সম্পাদক সৈয়দ মাও. হাবিব উল্লাহ বেলালী।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্য বলেন, আমাদেরকে চারটি বিষয় গ্রুরুত্ব দিতে হবে, আল্লাহর উপর দৃঢ বিশ্বাস, দৃঢতা, ধৈর্য, একে অন্যর মধ্য বিভেদে লিপ্ত না হওয়া। এই চারটি বৈশিষ্ট্য ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের জন্য জরুরী, আমরা যদি এই চারটি গুন নিজেদের মধ্যে প্রতিষ্ঠা করতে পারি তা হলে আমাদের মাঝে আর কোন ভুল বুঝা-বুঝি হবেনা, ইনশা আল্লাহ।
প্রধান বক্তা বলেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ
কোন জোটে অংশ গ্রহন না করে আপোষহীনভাবে ইসলামকে ক্ষমতায় বসানোর জন্য গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন এককভাবে তিনশত আসনেই প্রার্থী দিয়ে ছিলেন, যা ৭১ পরে কোন নির্বাচনে কোন দলই এককভাবে তিনশত আসনে প্রার্থী দিতে পারেনি,  ইসলামী আন্দোলন তিনশত আসনে প্রার্থী দিয়ে জনগনের মাঝে হাত পাখার তথা ইসলামের দাওয়াত পৌছাতে সক্ষম হয়ছে, এটা
ইসলাম ও মুসলমানদের জন্য আনন্দ ও গর্বের বিষয়।

অতএব, আমরা যারা প্রবাসে কর্মরত রয়েছি, আমাদেরও অনেক দায়িত্ব রয়েছে, আমরা মুসলমান হিসেবে ঈমানী দায়িত্ব ইসলামের পক্ষে কাজ করা, আমাদেরকে যেমন ইসলামের পক্ষে কাজ করতে হবে তেমনিভাবে আমার বন্ধুদেরকেও ইসলামের পক্ষে দাওয়াত দিতে হবে এবং পরিবারের সদস্যদের মাঝে ও ইসলামের দাওয়াত দিতে হবে, অতএব আসুন আমরা সকলে মিলে ইসলামী আন্দোলনের পতাকা তলে সমেবত হয়ে ইসলামী হুকুমত প্রতিষ্ঠার কাজ কে আরো দুর্বার গতিতে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য সর্বাত্মক সহযোগিতা করি।

এতে আরো বক্তব্য রাখেন
মো. মুজাহিদুল ইসলাম, মো. আক্তারুজ্জামান
হাফেজ মামুনুল ইসলাম, হাফেজ ফয়সাল আহমদ
মো. আবু ত্বলহা এবং উপস্হিত ছিলেন, কবির আহমাদ, আব্দুল্লাহ আলতাফ, আব্দুল আজিজ আলতাফ প্রমুখ।

পরে প্রধান অতিথি গত সেশনের আহবায়ক কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা করেন এবং সকলের মতামতের ভিত্তিতে আগামী সেশনের জন্য আলহাজ্ব ফখরুল ইসলাম সুমন কে সভাপতি, হাফেজ. ইলিয়াছ হোসাইন কে সেক্রেটারী, মো.মামুনুল ইসলামকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে পুর্নাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেন এবং সকল দায়িত্বশীলকে শপথ পাঠ করান।

দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে প্রচুর প্রবাসীর উপস্হিতি ছিল।
তবে পুর্বের রাতে ফখরুল ইসলাম সুমনের বাবা ইন্তেকাল করায় সকলের মাঝে শোক বিরাজ করছিলো। তার পরেও শোকে বিভোর ফখরুল ইসলাম সুমন, প্রোগ্রামের যাতে ব্যাঘাত না ঘটে তার জন্য নিজেই প্রোগ্রামে উপস্হিত থেকে সব কিছু সুন্দরভাবে সমাপ্ত করেন। আমি দেখেছি তার মধ্যে ইসলামের মোহাব্বাত, দ্বীন কায়েমের কাজে কি ভাবে নিজেকে এমন শোকের মাঝে সর্বোচ্চ ধৈর্য ধারন করে দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন কে সফল ভাবে সমাপ্ত করেন।

পরে প্রধান অতিথি মুনাজাত পরিচালনা করেন, ফখরুল ইসলামের আব্বাজানের জন্য বিশেষ ভাবে দোয়া করেন, আল্লাহ পাক যেন উনাকে তার সমস্ত গুনা খাতা মাফকরে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন, আমিন।

Sharing is caring!