ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় তুর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেসের সংঘর্ষে এই পর্যন্ত ১৫ জন নিহত হয়েছে

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত নভেম্বর ১২, ২০১৯
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় তুর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেসের সংঘর্ষে এই পর্যন্ত ১৫ জন নিহত হয়েছে

আব্দুল কাদের
স্টাফ রিপোর্টার

গতরাত প্রয়া সাড়ে তিনটার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা তুর্ণা নিশীথা ও চট্রগাম থেকে ছেড়ে আসা উদয়ন এক্সপ্রেসের সংগর্ষের এই ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর ঢাকার সঙ্গে চট্টগ্রাম ও সিলেটের রেলযোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। আহতের সংখ্যা কমপক্ষে ৫০ জন। তাদেরকে প্রথমে স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়।

জানা গেছে, সিলেট থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী ৭২৪ উদয়ন এক্সপ্রেস-২৯৩৪ মন্দভাগ লুপ লাইনে প্রবেশকালে ঢাকা অভিমুখী ৭৪১ তুর্ণা এক্সপ্রেস-২৯২৩ বিপরীত দিক থেকে এসে সংঘর্ষ ঘটায়।তুর্ণার ইঞ্জিনের আঘাতে উদয়নের শেষ তিনটি বগি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ঘটনাস্থলেই বেশ কজন প্রাণ হারান, কয়েকজনের মৃত্যু হয় হাসপাতাল নেয়ার পথে। রেলওয়ে সূত্র জানায়, উদয়ন লুপ লাইনে ঢোকার সময় ঢাকাগামী তুর্ণা নিশীথার মেইন লাইনে থেমে থাকার কথা ছিলো। কিন্তু সিগন্যাল না মেনে তুর্ণা সচল থাকায় দুর্ঘটনা ঘটে।

উদয়নের শেষ ৩টি কোচ ও তূর্ণার ইঞ্জিন মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। লাকসাম থেকে ভোর সাড়ে চারটায় রিলিফ ট্রেন রওয়ানা করেছে বলে রেলওয়ে ফ্যানদের ফেসুবক পেজে জানানো হয়েছে।

দুর্ঘটনার পর পরই আশপাশের গ্রাম থেকে মানুষজন ছুটে আসে। যতোদূর সম্ভব তারা উদ্ধারকাজ শুরু করে। এরপর উদ্ধার কাজে যোগ দেয় পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস।

সর্বশেষ প্রাপ্ত খবরে জানা গেছে, ভোর ৬টার কিছু আগে ক্ষতিগ্রস্ত ৩টি কোচসহ পেছনের আরো ৩টি, মোট ৬টি কোচ রেখে বাকি কোচগুলো নিয়ে উদয়ন এক্সপ্রেস চট্টগ্রাম রওয়ানা করেছে।

Sharing is caring!