চাকরি দেবেন বলে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ: আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

আওয়ার বাংলাদেশ ২৪
প্রকাশিত নভেম্বর ১১, ২০২০
চাকরি দেবেন বলে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ: আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

আওয়ার বাংলাদেশ নিউজ

চাকরি দেবেন বলে ডেকে নিয়ে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রেজওয়ান আলী খানসহ দুজনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আজ বুধবার ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৯ এর আদালতে ভুক্তভোগী সেই নারী বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। মামলার অপর আসামি হলেন, সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামিম আহমেদ মুরাদ।

এর আগে ভুক্তভোগী সেই নারীর জবানবন্দি গ্রহণ করেন আদালত। পরে ভাটারা থানাকে মামলার এজাহার গ্রহণ করার নির্দেশ দেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, আসামি শামীম আহমেদ মুরাদ ও রেজওয়ান আলী খান পরষ্পর একই দলভুক্ত ও একজোট। তারা নারী দেহলোভী, দুষ্ট, লম্পট শ্রেণির লোক এবং নারীর দালাল ও শক্তিশালী চক্র। মামলার বাদিনী স্বল্পশিক্ষিত বিধায় তিনি যোগ্যতা অনুযায়ী অফিস সহকারী হিসাবে কাজ করে আসছিলেন।

বৈশ্বিক মহামারির কারণে এর আগের কাজে নিয়োগপ্রাপ্ত না হওয়ায় অর্থনৈতিক দৈনকষ্টে দিনযাপন করছিলেন। এর আগের কাজের সুবাদে বাদিনীর সঙ্গে মুরাদের পরিচয় হয়। গত ২৭ অক্টোবর বাদিনী চাকরির আশায় মুরাদের সাথে যোগাযোগ করেন। চাকরির দেয়ার আশা দিয়ে নারীকে রেজওয়ান তার অফিসে সাক্ষাৎ করতে বলেন।

এরপর বাদিনী কাজ পাওয়ার উদ্দেশ্যে গত ১ নভেম্বর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সেই অফিসে যান। সেখানে তিনি মুরাদকে দেখতে পান। কিন্তু তার দেওয়া ঠিকানায় কোনো অফিস পাননি তিনি। ওই ঠিকানা একটি ফ্ল্যাট বাসার ছিল। এরপর মুরাদ তাকে বলেন, স্যার (রেজওয়ান) ভেতরের রুমে আছেন। এরপর বাদিনী রুমে প্রবেশ করামাত্রই কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই তার ওপর দুই আসামি ঝাঁপিয়ে পড়েন এবং তার ওপর পাশবিক ও যৌন নির্যাতন চালান।

 

Sharing is caring!