পীর সাহেব চরমোনাই (রঃ) আজীবন মুজাহিদ ছিলেন- আল্লামা খালেদ সাইফুল্লাহ

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৯
পীর সাহেব চরমোনাই (রঃ) আজীবন মুজাহিদ ছিলেন- আল্লামা খালেদ সাইফুল্লাহ

এমএমবি আকরাম ভূঁইয়া

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:

অাজ ২৬/০৯/১৯ ইং বিকেল ৪ টায় করণা নগরস্থ আই এ বি মিলনায়তনে লক্ষ্মীপুর জেলার ইসলামী যুব আন্দোলন কমলনগর উপজেলা শাখার উদ্যোগে মাও. মুহা. নুরুদ্দীন আনসারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত “শায়েখ ফজলুল করীম”(পীর সাহেব চরমোনাই)(রঃ) এর জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইসলামী আন্দোলনের কেন্দ্রীয় মুহতারাম উপদেষ্টা ও ৮ নং চর কাদিরা ইউপির সুনামধন্য চেয়ারম্যান,
আল্লামা খালেদ সাইফুল্লাহ পীর সাহেব কমলনগর,
প্রধান অতিথি হিসাবে তিনি আরো বলেন পীর সাহেব চরমোনাই (রঃ) হাফেজ্জী হুজুর (রঃ) এর ছাত্র, খলীফা ও রাজনৈতিক একনিষ্ঠ কর্মী ছিলেন, বাতিলের বিরুদ্ধে কথা বলার সময় কাউকে পরওয়া করতেন না, বাতিলের বিরুদ্ধে হুংকার ছাড়লে কেউ সামনে এসে কথা বলার সাহস পেতো না। তার বাবা মাও. সৈয়দ এছহাক (রঃ) ইন্তেকাল করার পরে চরমোনাই তরীকার দায়িত্ব পান পরবর্তীতে স্বীয় উস্তাদ হাফেজ্জী হুজুর (রঃ) এর হাত ধরে ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ বিধান ইসলামী হুকুমত প্রতিষ্ঠার জন্য আজীবন মুজাহেদা করেন এই জন্যেই তিনি আজীবন মুজাহিদ ছিলেন। সভাপতির বক্তব্যে মাও. নুরুদ্দীন আনসারী বলেন, হাফেজ্জী হুজুর (রঃ) গ্রামে গঞ্জে গিয়ে কুরআন শিক্ষা দিতেন তারই ধারাবাহিকতায় মাও. সৈয়দ ফজলুল করীম (রঃ) ৬৮ হাজার গ্রামে ৬৮ হাজার কুরআনী মক্তব প্রতিষ্ঠা করার ঘোষণা করেন বর্তমান শায়েখ দ্বয় তার স্বপ্ন বাস্তবায়নেস জন্য কাজ করে যাচ্ছেন, তিনি সাধা মনের মনুষ ছিলেন আজীবন ইসলামী হুকুমত প্রতিষ্ঠা করার জন্য কাজ করে গেছেন, উনার সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য সবাইকে ইখলাসের সাথে কাজ করার আহ্বান জানান। আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন কমলনগর উপজেলা শাখার সভপতি মাও. শরীফুল ইসলাম বাশার, সাংগঠনিক সম্পাদক মাও. সিরাজুল মেরাজ, ইশা ছাত্র আন্দোলন কমলনগর সভাপতি মুহাম্মদ শারাফাত হোসেন স্বপন, যুব আন্দোলন কমলনগর উপজেলা শাখার সহসভাপতি মুহা. শাহজাহান সিরাজী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাও. মামুনুর রশীদ, প্রকাশনা সম্পাদক মাও. হারুনুর রশীদ প্রমুখ।

Sharing is caring!