জমি আছে ঘর নাই, প্রকল্পের অধীনে নির্মাণধীন ঘর পরিদর্শণ করেন জেলা প্রশাসক

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯
জমি আছে ঘর নাই, প্রকল্পের অধীনে নির্মাণধীন ঘর পরিদর্শণ করেন জেলা প্রশাসক

তানিম ইবনে তাহের
নরসিংদী জেলা প্রতিনিধি:

যার জমি আছে ঘর নাই, তার নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণ- প্রকল্পের আওতায় নরসিংদীর শিবপুরে হতদরিদ্রদের জন্য ৮৮টি ঘর নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে।
গতকাল (২১ সেপ্টেম্বর) বিকালে উপজেলার চৌঘরিয়া গ্রামের এ প্রকল্পের নির্মাণাধীন একটি ঘর পরিদর্শন করেন নরসিংদী জেলার জনবান্ধব ও নান্দনিক জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। পরিদর্শনকালে তিনি অত্যন্ত সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। নিজের একখণ্ড জমির ওপর সম্পূর্ণ সরকারি উদ্যোগে তৈরি করে দেয়া হচ্ছে এই ঘরটি।নতুন ঘর পেয়ে দারুণ খুশি উপজেলার চৌঘরিয়া গ্রামের শারীরিক প্রতিবন্ধী জামিলা খাতুন । কোন প্রকার ঘুষ ছাড়াই পেলেন নতুন বাড়ী, তাই বাড়ী পেয়ে চোখে মুখে হাসির ঝিলিক ফুটে উঠেছে। জামিলা খাতুন শারীরিক প্রতিবন্ধীতার কথা বিবেচনা করে তার জন্য একটি হুইল চেয়ারের ব্যবস্থা করে দেন জেলা প্রশাসক।
সবার জন্য বাসস্থান নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পে অধীন ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে ‘যার জমি আছে ঘর নাই, তার নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণ’ উপখাতের আওতায় নরসিংদীর শিবপুরে ৮৮ টি ঘর বরাদ্দ প্রদান করা হয়।জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন এর সুস্পষ্ট নির্দেশনায় এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ হুমায়ুন কবিরের সার্বিক তত্ত্বাবধায়নে অত্যন্ত সূক্ষ্ম ও সুচারুভাবে গৃহনির্মাণের জন্য অনুদান পাওয়ার যোগ্য সুবিধাভোগী যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে ‘যার জমি আছে ঘর নাই, এমন পরিবার নির্বাচন করা হয়েছে। সর্বমোট ৮৮টি ঘরের মধ্যে ইতিমধ্যে ৮২টি ঘর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং বাকিগুলো কাজ চলমান রয়েছে। প্রতিটি ঘর নির্মাণের সময় ডিজাইন এবং প্রাক্কলনকে সমুন্নত রেখে উন্নতমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে। ১৭৫ বর্গফুট সিআইসিট বিশিষ্ট ঘর নির্মাণ করা হয়েছে যার প্রত্যেকটি আলাদা টয়লেট রয়েছে।

Sharing is caring!