সাম্প্রদায়িক এজেন্ডা বাস্তবায়নে ৫ আগস্টকে বেছে নিয়েছে হিন্দুত্ববাদী মোদী সরকার-ইশা ছাত্র আন্দোলন

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত আগস্ট ৪, ২০২০
সাম্প্রদায়িক এজেন্ডা বাস্তবায়নে ৫ আগস্টকে বেছে নিয়েছে হিন্দুত্ববাদী মোদী সরকার-ইশা ছাত্র আন্দোলন

আগামী বুধবার ৫ আগস্ট ভারতের অযোধ্যায় শহীদ বাবরি মসজিদের স্থানে রাম মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কট্টর হিন্দুত্ববাদী ও চরম সাম্প্রদায়িক মোদি সরকার। গত বছর এ তারিখেই ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ নং অনুচ্ছেদ বাতিল ঘোষণা করে কাশ্মীরের মুসলমানদের স্বাধীনতা হরণ করা হয়েছিল। মোদি সরকার ইচ্ছাকৃতভাবেই এ তারিখ কে রাম মন্দিরে ভূমি পূজনের তারিখ নির্ধারণ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি এম. হাছিবুল ইসলাম এবং সেক্রেটারি জেনারেল নূরুল করীম আকরাম।

আজ ৩রা আগস্ট ২০২০ ইং সোমবার বিকেলে এক যৌথ বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, সাম্প্রদায়িক এজেন্ডা বাস্তবায়নে ৫ আগস্ট কে বেছে নিয়েছে কট্টর হিন্দুত্ববাদী মোদী সরকার। গতবছর ৯ নভেম্বর এক বিতর্কিত ও অবৈধ রায়ের মাধ্যমে শহীদ বাবরি মসজিদের স্থানে রাম মন্দির নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। যে রায়টি ছিল সম্পূর্ণ ধর্মীয় বিদ্বেষপূর্ণ, উচ্চমাত্রার সাম্প্রদায়িক আচরণ এবং উদ্দেশ্য মূলক একটি রায়। সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা এড়াতে ভারতের মুসলমানরা তাৎক্ষণিক দৃশ্যমান কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি। কিন্তু কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা হরণ দিবস তথা ৫ আগস্ট রাম মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন এবং রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে তার সম্প্রচার করে মুসলমানদের অন্তরে কাটা ঘায়ে নুনের ছিটা দেয়ার মত নতুন করে ক্ষোভের জন্ম দিবে কট্টরপন্থী হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকার। যা মুসলমানদের মনে হারানো গৌরব তথা ভারতবর্ষের নেতৃত্ব গ্রহণের আন্দোলনকে জাগিয়ে দেবে বলে আমরা মনে করছি।

নেতৃদ্বয় বলেন, শহীদ বাবরি মসজিদের স্থানে রাম মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ভারতে হিন্দুত্ববাদী অপশক্তির পতনেরই নামান্তর। শতাব্দীকাল ধরে ভারতবর্ষের শাসন করে আসা মুসলমানদের ইতিহাস স্মরণ করিয়ে দিয়ে তারা বলেন, বিজেপি সরকার সহ ভারতের হিন্দুদের স্মরণে রাখা উচিত ভারতবর্ষে মুসলিম শাসনামলে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির কথা। মুসলমানরা পরধর্মের প্রতি কিভাবে আচরণ করেছিলেন। তারা যদি স্মরণে রাখতে ব্যর্থ হয় তবে তাদের এটাও মনে রাখা উচিত এর জন্য চড়া মূল্য দিতে হবে হিন্দুত্ববাদী কট্টরপন্থীদের।

বার্তা প্রেরক
কে এম শরীয়াতুল্লাহ
কেন্দ্রীয় প্রচার ও আন্তর্জাতিক সম্পাদক
ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন

Sharing is caring!