লকডাউন ভাবনা : পর্ব-১২

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত এপ্রিল ১১, ২০২০
লকডাউন ভাবনা : পর্ব-১২

মাস্টার সেলিম উদ্দিন রেজা 

গতকাল শুক্রবার ছিল। মনটা খুবই খারাপ। বাংলাদেশে প্রথম জুমা যেদিন মুসল্লিরা মসজিদে গিয়ে জুমার নামায আদায় করতে পারেনি। আমিও সেই হতভাগাদের একজন। বাসায় জোহরের নামায আদায় করেছি জুমার নামাযের পরিবর্তে। কারো ওপর দোষ চাপানোর সুযোগ নেই। নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য এ মূহুর্তে ঘরে থাকা এবং ঘরেই নামায আদায় করা ছাড়া আমাদের কোন পথ খোলা নেই। আমার বুদ্ধির বয়সে এটাই প্রথম ঘটনা। জুমার নামায পড়তে মসজিদে যেতে না পারা।

আজকের বিশ্ব পরিস্থতির চিত্রটিতে চোখ বুলাতোই বুকের ভেতর প্রচন্ড একটা ঝাঁকুনি খেলাম। মনে হলো রিক্টার স্কেলে ৭ মাত্রায় ভূমিকম্প বয়ে গেল দুনিয়াজুড়ে।। উঁচু উঁচু প্রাসাদগুলি সব সিজদায় লুটে পড়ছে। সড়ক মহাসড়কগুলো ধ্বসে যেন সৃষ্টি হচ্ছে অসংখ্য খাদ। প্রতাপ আর প্রভাবশালী রাজা বাদশাহরা যেন গোঙ্গাচ্ছে প্রাসাদে চাপা পড়ে, প্রতাশা করছে কেউ হাত বাড়িয়ে দিক উদ্ধারে। এ্যাম্বুলেন্সের সাইরেন ছাড়া আর কোন শব্দ যেন অবশিষ্ট কোন শহর, নগর,বন্দর, লোকালয়ে।

ইতালিতে মৃত্যুর মিছিল, আমেরিকায় মৃত্যুর মিছিল, বৃটেনে মৃত্যুর মিছিল, স্পেনে মৃত্যুর মিছিল, ইরানে মৃত্যুর মিছিল, জাপানে মৃত্যুর মিছিল, ইকোয়েডবে মৃত্যুর মিছিল, আরব আমিরাতে মৃত্যুর মিছিল। এ মিছিল একযোগে চলছে পৃথিবীর ২০৯ টি দেশে। পুরো পৃথিবী আজ এক ভয়ংকর মৃত্যুকূপ।

পৃথিবীটাকে থমকে দিয়েছে প্রাণঘাতী এই করোনা ভাইরাস।জগতজুড়ে চলছে লকডাউন। করোনার শিকলে আটকা পড়েছে অর্থনীতির চাকা। ভীবৎস অক্টোপাশের মতো করোনা খামছে ধরেছে শিল্প, বাণিজ্য, অফিস- আদালত, কোর্ট- কাচারী, শিক্ষা, সংস্কৃতি সবই। জগৎজুড়ে এমন নিরবতা দেখা দূরের কথা কেউ কল্পনাও করেনি কখনো।করোনার রাক্ষসী থাবায় পৃথিবী যেন আজ নিষ্প্রাণ। শব্দহীন অসহনীয় নিস্তব্ধতা। অলস সময়, কর্মহীন জীবন।বিষাদে বিষাদে আজ বিবর্ণ জীবনের রংধনু। সুখ নির্বাসিত দুখের সাগরে। আনন্দ নিরুদ্ধেশ নিরানন্দ নগরে। শান্তির সুবাতাস যেন পথ হারিয়ে চলে গেছে অন্য কোন গ্রহে।

সচেতন মহলের অভিমত, ঘরে আবদ্ধ থাকাটাই করোনা থেকে দূরে থাকার উত্তমপন্থা। সরকারের দৃষ্টিতে ঘরের বাইরে আসাটাই আজকের দিনে সবচেয়ে বড় অপরাধ। তাই বাইরে যাওয়ার ক্ষেত্রে জারি হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। বাইরে বেরোলেই কপালে জুটছে পুলিশের লাঠিচার্জ। কোন কোন দেশতো আইন শৃংখলা বাহিনীকে দিয়েছে গুলির নির্দেশ।

বিবেকের আদালতে আজ আমরা কয়েদী। নিজ নিজ গৃহ আজ কারাগার।অবরুদ্ধ জীবন।রুদ্ধ পৃথিবীর গতি। আজ জগতজুড়ে রাজত্ব কেবল মানুষখেকো করোনার। এই কঠিন পরিস্থতিতে জগতের সব মানুষ যেন স্যামুয়েল টেইলরের জাহাজযাত্রী। ( The Ancient Mariner.)

“দিনের পর দিন,দিনের পর দিন
আমরা আটকে পড়লাম, রুদ্ধশ্বাস, রুদ্ধগতি
ছবির সাগরে, ছবির জাহাজের মতো
স্থির,অচল, রুদ্ধ গতি।”

কোলরিজের সেই এক্সট্রা অর্ডিনারী শীপ যেমন বৃদ্ধ নাবিক ব্যতিত সব যাত্রীর জীবন কেড়ে নিয়েছিল ঠিক সেভাবে করোনা যেন ধেয়ে আসছে আমাদের দিকে–

” এত মানুষ, এত সুন্দর
সবাই মৃত শুয়ে আছে
আর শত শত সেঁত সেঁতে জীব
বেঁচে আছে,সাথে আমিও।”

কেন এমনটি মনে হচ্ছে আমার? তবে শুনুন। তাই বলছি আজ বিমর্ষ হৃদয়ে —

সর্বদা জেগে থাকা নিউইয়র্ক শহর করোনার প্রতাপে এখন মৃত্যুপুরী। এই শহরের বাসিন্দা মন্টেলিওন ও তার প্রেমিকা মার্ক কাজলো নিউইয়র্ক শহরের বর্তমান অবস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন এভাবে- ” আমরা অ্যাপার্টমেন্ট থেকে বিহঙ্গ দৃষ্টিতে দেখতে পাচ্ছি শহরটাকে। উইকওফ হাইটস মেডিকেল সেন্টারে খুব চিৎকার, চেঁচামেচি হচ্ছে,যা দেখে ধারণা করতে পারছি ভেতরের অবস্থা কতটা খারাপ।কত লাশ ওখান থেকে বেরিয়ে এলো আমরা গুণে শেষ করতে পারলাম না।এখন লাশ গুনা ছেড়ে দিয়েছি।এটা খুবই ভয়াবহ দৃশ্য।কিন্তু এটাই বাস্তব।”

নিউইয়র্ক থেকে এবার দৃষ্টি ফিরিয়ে চলুন তাকাই পৃথিবীর আর এক বিখ্যাত দেশ জ্ঞান, বিজ্ঞান ও সভ্যতার পাদপীঠ খ্যাত বৃটেনের দিকে। আজ পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৬৫ হাজার মানুষ। মৃত্যুর সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৮ হাজার।দেশটির উপ বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা রুপার্ট শুট জানিয়েছেন, ” প্রাণঘাতি এই ভাইরাসে বৃটেনে আক্রান্ত হতে পারে শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ। ৯ এপ্রিল বৃহষ্পতিবার তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান। ভাবতেই অবাক লাগে বৃটেনের মতো উন্নত দেশে হাসপাতালে নার্সরা পিপিই’র অভাবে পলিথিন শরীরে জড়িয়ে রোগিদের সেবা দিচ্ছে।

এবার তাকিয়ে দেখা মিডলিস্টের নেতৃস্থানীয় দেশ সৌদি আরবের দিকে। নভেল করোনা ভাইরাসেন থাবায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে দেশটি। ইতোমধ্যেই খোদ রাজ পরিবারের দেড়শতাধিক সদস্য আক্রান্ত এ ভাইরাসে। করোনা আতঙ্কে প্রাসাদ ছেড়ে পালিয়েছেন বাদশাহ এবং যুবরাজ। ৮৪ বছর বয়সী সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ জেদ্দার রাজ প্রাসাদ ছেড়ে লোহিত সাগর উপকূলীয় শহরটির কাছে একটি আইল্যান্ড প্যালেসে অবস্থান নিয়েছেন।৩৪ বছর বয়সী মোহাম্মদ বিন সালমানও জেদ্দার এক প্রত্যন্ত এলাকায় বসবাস কর্ শুরু করেছেন,যেখানে তিনি ইতোমধ্যে “নিউরো” নামের একটি আধুনিক নগরী গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

পরিস্থতিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে মক্কা, মদীনা, রিয়াদ ও জেদ্দা শহরে কারফিউ জারি করা হয়েছে। সবগুলি আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলেও জারি করা হয়েছে নিষেধাজ্ঞা।

বিশ্বজুড়ে আজকের করোনা আপডেট হচ্ছে, এ পর্যন্ত আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ১৫ লক্ষ, ৩৮ হাজার ৮৩৭ জন।মৃত্যুর সংখ্যা ৮৯ হাজার ৭৩৭ জন। বর্তমানে পৃথিবীর ২০৯ টি দেশে একযোগে চলছে করোনা তান্ডব। করোনার অাঘাতে সৌরজগতের পৃথিবী নামক গ্রহটি এখন ভয়ংকর মৃত্যুকূপ যেখানে প্রতি মিনিটে গড়ে শুধু এ ভাইরাসে মৃত্যুর মিছিলে যোগ দেয় ৬ থেকে ৮ জন। আগামী কালের আপডেটে থাকবে লাখ ছাড়িয়েছে মৃত্যুর সংখ্যা, এ আশংকা যেন তেমনি বাস্তব যেমনটা কাল সকালে পূব গগনে উদিত হবে রবি….

চলবে…..

Sharing is caring!