মৃত ব্যক্তির কবর খোঁড়ার সময় আরবি অক্ষরে লেখা বের হয়েছে মাটিতে।

আওয়ার বাংলাদেশ ডেস্ক ২৪
প্রকাশিত জানুয়ারি ৭, ২০২১
মৃত ব্যক্তির কবর খোঁড়ার সময় আরবি অক্ষরে লেখা বের হয়েছে মাটিতে।

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় মৃত ব্যক্তির কবর খোঁড়ার সময় আরবি অক্ষরে লেখা বের হয়েছে মাটিতে।

কবরের দুই পাঁজরে-পশ্চিমে বিসমিল্লাহ, সুরা ইয়াছিন অক্ষরের কিছু অংশ লেখা রয়েছে। পূর্ব পাশে লেখা মীম হা মীম দাল (মোহাম্মদ) নাম।

পশ্চিম পানিমাছকুটি গ্রামে এমন ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে ঘটনাস্থলে হাজার মানুষের ঢল নামে। এ দৃশ্য এক নজর দেখার জন্য ভিড় জমান কবরের পাশে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য মোতায়েন করা হয় পুলিশ।

জানা গেছে, ওই এলাকার মৃত আ. জব্বার আলীর ছেলে ইসমাইল হোসেন (৩৮) বুধবার রাত ১০টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তার লাশ স্বজনেরা নিজ বাড়ির আঙিনায় দাফন করার জন্য বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় প্রস্তুতি নেন।

কবর খোঁড়ার জন্য আব্দুল বারি ও আমির আলী মাটি খোঁড়া শুরু করেন। কবরের বেশির ভাগ ছিল বালুমাটি। কবরের উপরের অংশ খোঁড়ার সময় বের হয়ে আসে আরবি অক্ষর।

বিষয়টি প্রথমে তারা দেখে চমকে যান। পরে ধারালো হাঁসুয়া দিয়ে তারা যতবার মাটি কেটে দেন ততবারই লেখা বন্ধ না হয়ে পরিষ্কার হয়ে ওঠে আরবি হরফগুলো।

মৃত ইসমাইল হোসেন ঢাকার মহাখালীর ব্র্যাকে চাকরি করতেন। তিনি এক সন্তানের জনক। ছাত্রজীবন থেকে তিনি নামাজি ছিলেন। চার ভাই তিন বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন তিন নম্বর।

মৃতের বড়ভাই ইব্রাহিম আলী জানান, আমার ছোটভাই নামাজি ছিলেন। আমার জানামতে বেঁচে থাকা অবস্থায় কোনো দিন মিথ্যা কথা বলেনি। তার স্ত্রী-সন্তানও নামাজ-কালাম পড়েন নিয়মিত। ৮ বছরের ছেলেকে সে মাদ্রাসায় ভর্তি করে দিয়েছে। সে ওখানে পড়ালেখা করে।

উত্তর শিমুলবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নুরনবী জানান, কবরে আরবি অক্ষর লেখা আমার জীবনে দেখি নাই। এই প্রথম এমন দৃশ্য চোখে পড়ল। এটা অলৌকিক ঘটনা।

ফুলবাড়ীর নন্দেরকুটি চৌপথী জামে মসজিদের ইমাম (খতিব) ও বড়লই এলাকার হাফেজ মাওলানা আ. হক জানান, কবরের দুই পাঁজরে- পশ্চিমে বিসমিল্লাহ, সুরা ইয়াছিন অক্ষরের কিছু অংশ। পূর্ব পাশে রয়েছে মীম হা মীম দাল (মোহাম্মদ) নাম। আমরা নিজেরাই পড়েছি। এটা আল্লাহতালাই ভালো জানেন। এ বিষয়ে বলা মুসকিল।

ফুলবাড়ী থানার ওসি রাজিব কুমার রায় জানান, পুলিশ ফোর্স সেখানে পাঠানো হয়েছে। লাশ দ্রুত দাফন করার জন্য জনপ্রতিনিধিদের অবগত করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমান জানান, খবর শোনার পর পুলিশকে জানানো হয়েছে। তারা নিরাপত্তার বিষয়টি দেখবেন।

Sharing is caring!