ভারাক্রান্ত কণ্ঠে আকুতি বেফাকের সভাপতি মুহিউস সুন্নাহ আল্লামা মাহমুদুল হাসান দাঃবাঃ

আওয়ার বাংলাদেশ ডেস্ক ২৪
প্রকাশিত ডিসেম্বর ১৬, ২০২০
ভারাক্রান্ত কণ্ঠে আকুতি বেফাকের সভাপতি মুহিউস সুন্নাহ আল্লামা মাহমুদুল হাসান দাঃবাঃ
কার মৃত্যু কখন হয় আমরা কেউ জানি না।
আমাদের সবসময় মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত থাকা দরকার।আমিতো কেবল জীবিত অবস্থায় আমল করতে পারবো, মৃত্যুর পর তোমরা আমার জন্য করবে আশা করি।
নূর হুসাঈন কাসেমী সাহেবের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, তিনি খুব মুখলিস ও দরদি মানুষ ছিলেন।
তোমরা সবাই তিনবার সূরা ইখলাস পাঠ করো। অতঃতিনি সবাইকে নিয়ে দোয়া করেন।এরপর বলেন-
তোমরাইতো আমার সবচেয়ে আপন, তাই তোমাদের কাছে আমি কিছু অসিয়ত করে যাচ্ছি-
আমার জানাযা যেন এতো লেইট না হয় বরং তিন ঘণ্টার মধ্যে পারলে দুই ঘণ্টার মধ্যে হলে ভালো হয়।
যেখানে মারা যাই সেখানেই কবর দিয়ে দিবে। মাদরাসায় বা আশপাশে মারা গেলে মাদরাসায়।
খবরদার এর জন্য মাদরাসার ক্লাস যেন বন্ধ না হয়। বিশেষ করে মক্তব হেফজখানা অবশ্যই চালু থাকবে, তারা কুরআন তেলাওয়াত করে আমার জন্য দোয়া করবে।
আগত লোকদের ব্যবস্থাপনায় কিছু লোক থাকবে, বাকিরা মাদরাসার নিয়মিত কাজ করে যাবে।
বার বার বলছি, সুন্নাতের খেলাফ খিছুই করবা না।
ছবি তুলবা না, ভিডিও করবা না।
বড় জামাতের জন্য জানাযা লেইট করবা না।মানুষকে যত কম জানাবে ততই ভালো।
মৃত ব্যক্তি যদি বুজুর্গ হয়, তাহলে জান্নাতের নেয়ামত তাঁর অপেক্ষায় থাকে। মৃত ব্যক্তিও সেখানে তাড়াতাড়ি যেতে চায়। কিন্তু ভক্তরা নিজেদের স্বার্থ রক্ষার জন্য দুনিয়াতে তাঁকে আটকিয়ে রাখে। মৃতের স্বার্থের দিকে খেয়াল করে না।
আমি আশা করি তোমরা এমন করবা না।
আলেম উলামা হয়েও সুন্নাতের অনুসরণ না করা বড়ই দুঃখ জনক।

Sharing is caring!