বেফাকের ৪৪ তম কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফল প্রকাশ, পাসের হার ৭৪.৪%

আওয়ার বাংলাদেশ ডেস্ক ২৪
প্রকাশিত মে ১০, ২০২১
বেফাকের ৪৪ তম কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফল প্রকাশ, পাসের হার ৭৪.৪%

বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের ৪৪ তম কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। এ বছর প্রকাশিত ফলাফলে বেফাকের মোট গড় পাসের হার ৭৪.৪%।

আজ সোমবার (১০ মে) দুপুর ৩ টা ২০ মিনিটে রাজধানীর কাজলা (ভাঙ্গাপ্রেস) বেফাক মিলনায়তনে ৪৪ তম কেন্দ্রীয় বেফাক পরীক্ষার ফলাফল বেফাকের ভারপ্রাপ্ত সদর মাওলানা মাহমুদুল হাসানের হাতে ফলাফল তুলে দেন বেফাকের প্রধান পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মুফতি আমিনুল হক।

ফজিলত মারহালায় গড় পাসের হার পুরুষ ৮০.৩৪%, মহিলা ৬৮.৫০%, সানাবিয়া উলইয়ায় গড় পাসের হার পুরুষ ৭২.৯৪%, মহিলা ৫৬.২৫%, মুতাওয়াসসিতাহ মারহালায় গড় পাসের হাড় পুরুষ ৮৫.২৭%, মহিলা ৬৮.৬৪%, ইবতিদাইয়্যা গড় পাসের হাড় পুরুষ ৭৫.৬১%, মহিলা ৬৬.৭৭%, হিফজ মারহালায় ৯৫.১৫%, ইলমুজ তাজভীদ ও কেরাত মারহালায় ৯০.৭৪%।

জানা গেছে, গত ১৩ এপ্রিল (মঙ্গলবার) বেফাক পরীক্ষার্থীদের খাতা দেখা শেষ হয়েছে। লকডাউনের কারণে ঘরে বসেই ‍মুমতাহীন বা পরীক্ষকরা পরীক্ষার খাতা দেখেছেন। এরপর সারাদেশকে ৪০ টি জোনে ভাগ করে খাতা জমা নেওয়া হয়েছিলো।

উল্লেখ্য, বেফাকের ৪৪ তম কেন্দ্রীয় পরীক্ষা শুরু হয়েছিলো গত ১৮ মার্চ ২০২১। শেষ হয়েছে ২৫ মার্চ ২০২১। সারাদেশে বেফাকের ২ লক্ষ ৩০ হাজার নিবন্ধিত পরীক্ষার্থীর থেকে ২ লক্ষ ২৫ হাজার পরীক্ষার্থী অংশ নেয় পরীক্ষায়। এবছর বেফাক শিক্ষার্থীদের খাতা দেখার জন্য করা হয়েছিল নতুন নিয়ম। সারাদেশকে ১২টি জোনে ভাগ করা হয়েছিলো। মুমতাহিনগণ নির্দিষ্ট জোনে এসেই দেখতেন পরীক্ষার্থীদের খাতা। কিন্তু করোনা ভাইরাস বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকার ঘোষিত লকডাউনের কারণে এবারও বাড়িতে বসেই খাতা দেখার সিস্টেম চালু করে বেফাক। এরপর চূড়ান্তভাবে নিরীক্ষণ শেষ করে আজ সোমবার ফলাফল প্রকাশ করলো বেফাক।

এ সময় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, বেফাকের সহ-সভাপতি মাওলানা সফিউল্লাহ, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক, (ভারপ্রাপ্ত) মহাপরিচাল মাওলানা মুহাম্মদ যুবায়ের, বারিধারা মাদরাসার মাওলানা মকবুল আহমদ, মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, মাওলানা নেয়ামাতুল্লাহ আল ফরিদীপ্রমূখ।

এ সময় স্বাগত বক্তব্যে বেফাক ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক বলেন, মুরুব্বিদের নির্দেশনায় দায়িত্বশীলদের অক্লান্ত মেহনতের ফলে আমরা ফলাফল প্রকাশ করতে পেরেছি। এজন্য আল্লাহ তায়ালার কাছে শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি।

বেফাকের ভারপ্রাপ্ত সদর মাওলানা বলেন, আল্লাহর কাছে শোকর যে তিনি আমাদের দ্বারা এ কাজ নিয়েছেন। যারা কাজকে এ পর্যন্ত এনেছেন তারা অনেক মেহনত করেছেন। তাদের মেহনতের ফলে যখন কাজ এ পর্যন্ত আসছে, তাহলে আমরা বলতে পারি যে, আল্লাহ তায়ালা সবার মেহনত কবুল করেছেন। আমরা এ কাজ দীনের কাজ মনে করি। ইখলাসের সাথে করি। কোনো অহঙ্কার নেই। আল্লাহ যেনো আমাদের ইখলাসের সাথে কাজকে কবুল করে নেন।

Sharing is caring!