বর্ণমালার ছড়া: রিয়াজুল ইসলাম গ্রন্থকার

আওয়ার বাংলাদেশ ডেস্ক ২৪
প্রকাশিত আগস্ট ১২, ২০২১
বর্ণমালার ছড়া: রিয়াজুল ইসলাম গ্রন্থকার

বর্ণমালার ছড়া:

বর্ণমালার শেষে, আছে মিলেমিশে
এগারোটি অক্ষর অদ্ভুত বেশে।
মনে হবে খাপছাড়া, অন্য পাড়ার
তবু তারা অনুপম অতি মজাদার।

তিন শ-তে গোল বাধে ব্যাকরণ বিভ্রাট
শিয়াল সিংহ ষাঁড়ে হয় যদি একসাঁট।
অহরহ, উহু আহা শেষ নেই হ-র ব্যবহার
ঘাতসহ তাপসহ স্বভাবটা নমনীয় যার।

গাড়ি বাড়ি চুড়ি দাড়ি ‘ড়’ আছে কাঁড়ি কাঁড়ি
সম্মানী নারীকে ভুল করে লিখব না নাড়ি।
গূঢ় গাঢ় অনূঢ়, ‘ঢ়’ দিয়ে লিখে যাই
নিগূঢ়ে আষাঢ়ে আছে গরুড়ে যা নাই।
অন্তঃস্থ-য় লিখি কবিতায়, যেমন তোমায়
খায় দায় অসহায় আয়-ব্যয় ব্যবসায়।
খণ্ড-ত খণ্ডিত, সিন্ধু-ঘোড়ার মতো
আলবৎ দেখেনি শিবনাথ পণ্ডিতও।

ঘাসের ডগায় জমে শিশিরের ফোঁটা যার
সেই হলো বাংলার নিসর্গ অনুস্বার।
রং মেখে সং সাজা ঢং করা ঘণ্টা
অনুস্বার ব্যতিরেকে হয় না এমনটা।
বাংলার বুকে আছে সে-ই তার সুখ
প্রাণ দিয়ে ভালোবাসে বাংলার মুখ।

বিসর্গ বাস করে, সুখে নয় দুঃখে
দুঃখ ছাড়ে না বলে বেঁচে আছে, রক্ষে।
অক্ষরে বসে যদি নাসিক্য বর্ণ
পেতনির নাকি-সুর টের পায় কর্ণ।
চাঁদের উপরে এলে তারকার বিন্দু
আকাশেই মিলে যায় চন্দ্রবিন্দু।

Sharing is caring!