প্রবাসে শাখাগুলোর প্রতি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত এপ্রিল ১৮, ২০২০
প্রবাসে শাখাগুলোর প্রতি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা

বিশেষ প্রতিনিধি:

করোনা পরিস্থিতিতে গোটা দেশের সবকিছু থেমে যাওয়াতে, দেশের সংকটাপন্ন মানুষ যেমন কষ্টে আছেন, এর চেয়েও বেশি কষ্টে আছেন দুর্দশাগ্রস্ত আমাদের প্রবাসী ভাইয়েরা।

দেশের প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ মানুষ বিভিন্ন কাজে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রবাস জীবন যাপন করছেন।

এদের মধ্যে বেশিরভাগই শ্রমিক শ্রেণী এবং স্বল্প বেতনে ছোটখাটো চাকরি করছেন।
কেউ কউ দোকানদারি এবং ক্ষুদ্র ব্যবসার সাথে জড়িত। কেউ আছেন, যাদের নির্দিষ্ট কোন কাজ নেই, যখন যা পান তাই করেন।
করোনা পরিস্থিতিতে সংকটে আছেন, প্রায় সবাই।

তবে বেশি সমস্যায় আছেন, যাদের নির্দিষ্ট কোন চাকরি নেই এবং যারা ছোটখাটো ব্যবসা এবং দোকানদারি করেন তারা।
অনেকে স্টুডেন্ট ভিসায় গিয়ে পড়াশোনার পাশাপাশি পার্ট টাইম জব করতেন। কাজ হারিয়ে তারাও এখন পেরেশান। ইউরোপ, আমেরিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যে অনেকে প্রবাসী ভাই করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। এখনো পর্যন্ত প্রবাসীদের মৃত্যুর সংখ্যা দেশের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি। দেশেতো যত দুর্দশাই হোক, আপনজনকে পাশে পাওয়া যায়।

কিন্তু প্রবাসীরা বড়ই দুঃসহ জীবন যাপন করেন। প্রায় ৯০ ভাগ প্রবাসীই আপনজনহীন একাকী থাকেন। করোনা পরিস্থিতিতে বিভিন্ন দেশে কঠোর লকডাউন -এর কারণে তারা আরো বেশি অসহায় ও দুর্দশাগ্রস্থ হয়ে পেরেছেন।

অনেকেরই চাকরি নেই, ব্যবসা নেই এবং কোন কাজ নেই। ফলে কোন উপার্জন না থাকার কারণে হাতে কোন টাকাও নেই।
বিশ্বের যেসব দেশে উল্লেখযোগ্য বাংলাদেশী প্রবাসী রয়েছে, সেসব দেশে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রবাসী শাখা সংগঠন ও রয়েছে৷

মোহতারাম মহাসচিবের নির্দেশক্রমে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রবাসী শাখা এবং প্রবাসী ভাইদের প্রতি আমি কিছু নির্দেশনা প্রদান করছি।

১. বাংলাদেশের প্রত্যেকটা জেলা এবং মহানগর শাখা যেমন করোনা পরিস্থিতিতে দুর্দশাগ্রস্থ মানুষের সহযোগিতা, অধস্তন শাখা ও কর্মীদের প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা প্রদান এবং নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ অব্যাহত রাখার জন্য একটি মনিটরিং সেল গঠন করেছে, আপনারাও প্রত্যেকটা দেশে তেমনই একটি কেন্দ্রীয় মনিটরিং সেল গঠন করবেন।

২. দুর্দশাগ্রস্ত যেকোনো বাংলাদেশি প্রবাসী ভাই বোনদের সাধ্য অনুযায়ী সর্বাত্মক সহযোগিতার জন্য আপনারাও আপনাদের প্রত্যেকটা অধস্তন শাখাকে, দায়িত্বশীল ও সদস্য কর্মীদেরকে যথাযথ নির্দেশনা দিবেন।

৩. যেসব সংকটাপন্ন প্রবাসীরা অর্থাভাবে খাদ্যসংকটে আছেন, তাদের তালিকা করে বাংলাদেশের দূতাবাসের সাথে যোগাযোগ করে, তাদেরকে ত্রাণ সংগ্রহে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবেন।

৪. কেউ অসুস্থ হলে যাতে মোবাইলে অথবা অনলাইনে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা পেতে পারেন সেজন্য বাংলাদেশের দূতাবাস থেকে বাংলাদেশী ডাক্তারদের নাম এবং মোবাইল নাম্বার সংগ্রহ করে প্রবাসীদের মধ্যে ব্যাপকভাবে প্রচারের ব্যবস্থা করবেন।

৫. যেকোনো প্রয়োজনে বাংলাদেশের দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। দূতাবাস যদি প্রয়োজনীয় সহযোগিতা না করে, তাহলে আমাদেরকে জানাবেন।

ইউরোপে নতুন করে গঠিত ‘গ্লোবাল পিস মুভমেন্ট’ কেও নির্দেশনাটি অনুসরণ করার জন্য অনুরোধ করা হল।

সবাই ভাল থাকুন, সুস্থ থাকুন এবং সতর্ক থাকুন। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আমাদের সবার জন্য সহায় হোন।

লেখক:
গাজী আতাউর রহমান
যুগ্ম মহাসচিব,
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

Sharing is caring!