নিজের টাকায় মিটার কিনে মাসিক ১০ টাকা ভাড়া দিতে হবে কেন: রাব্বানী

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০
নিজের টাকায় মিটার কিনে মাসিক ১০ টাকা ভাড়া দিতে হবে কেন: রাব্বানী

স্টাফ রিপোর্টার :

বিদ্যুৎ বর্তমানে মানুষের দৈনন্দিন জীবনে সব থেকে জরুরী একটি জিনিস। আর বাংলাদেশে প্রতিনিয়ত বাড়ছে বিদ্যুতের চাহিদা। অনেক সময় দেখা যায় চাহিদার তুলনায় ঠিক মত বিদ্যৎ সরবারহ দিতে পারছে না সরকার। তার পরেও সব থেকে বেশি সমালোচনা হয়ে থাকে যে বিষয়টি নিয়ে সেটি হচ্ছে বিদ্যুৎ বিল। সকল গ্রাহকেরই কোন না কোন সমস্য রয়েছে বিদ্যুৎ বিলের চার্জগুলো নিয়ে। এবার এই বিষয়টি নিয়ে বেশ প্রতিবাদী হয়ে উঠেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক এবং ডাকসুর জিএস গোলাম রব্বানী।

এ বিষয়ে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপুর দৃষ্টি আকর্ষণও করেছেন তিনি।

আজ (১৯ ফেব্রুয়ারি) বুধবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক আইডিতে এক স্ট্যাটাসে রাব্বানী বলেন, সরকারি কোনো প্রতিষ্ঠানের সেবার মান বা মূল্য নিয়ে জনমনে প্রশ্ন উঠলে জনস্বার্থে সেটির স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা আবশ্যক মনে করি।

তিনি বলেন, নৈতিক দায়বদ্ধতা থেকেই পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের উচিত প্রশ্নগুলোর উত্তর দেয়া। না হলে বিল পেপারের ওপরে লাল হরফে লেখা দেশপ্রেমের বাণী আপনারা কতটা ধারণ করেন, সেটি নিয়েও জনমনে প্রশ্ন উঠবে বৈকি!

স্ট্যাটাসে ডাকসু জিএস ডিমান্ড চার্জ, মিটার ভাড়া ও ভ্যাট নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

তিনি বলেন, ডিমান্ড চার্জটা কী? কেন ডিমান্ড চার্জের নামে এই ৫০ টাকা নেয়া হচ্ছে? এই টাকাটার গন্তব্যস্থল কোথায়?

রাব্বানী আরও বলেন, মিটার তো গ্রাহকের টাকায় কেনা। নিজের টাকায় মিটার কিনে মাসিক ১০ টাকা ভাড়া দিতে হবে কেন? এভাবে কত দিন মিটার ভাড়া দিতে হবে? দু-এক মাস নাকি প্রতি মাসেই? নাকি আজীবন?

সরকার নিচ্ছে ভ্যাট, আর পল্লী বিদ্যুৎ নিচ্ছে ডিমান্ড চার্জ, মিটার ভাড়া, সার্ভিস চার্জ, বিলম্ব মাসুল ইত্যাদি।

তিনি বলেন, পল্লী বিদ্যুতের অধিকাংশ গ্রাহক নিম্ন ও মধ্যবিত্তের সাধারণ মানুষ! তো, তারা এহেন শোষণ আর কতদিন সহ্য করবে? বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী, শ্রদ্ধেয় অগ্রজ নসরুল হামিদ বিপু ভাইয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশর সাধারন মানুষের মধ্যে রব্বানীর প্রতিবাদ করা প্রতিটা বিষয় সম্পৃক্ত রয়েছে। সাধারন মানুষ এই বিষয় গুলো নিয়ে আগেও অনেক প্রতিবাদ করেছে। তার পরেও হয়নি কোন সুরাহা।গতকাল বুধবার জিএস রব্বানী নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক আইডি থেকে এই বিষয়টা নিয়ে বেশ প্রতিবাদি লেখা লিখেছেন এবং দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের।

Sharing is caring!