নরসিংদীবাসীর সাথে আমার সম্পর্ক হচ্ছে বিনি সুতার মালা- এমপি বুবলী

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯
নরসিংদীবাসীর সাথে আমার সম্পর্ক হচ্ছে বিনি সুতার মালা- এমপি বুবলী

তানিম ইবনে তাহের

নরসিংদী জেলা প্রতিনিধি:

নরসিংদীর সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য তামান্না নুসরাত বুবলী বলেন, মেয়র লোকমান হোসেন নরসিংদীবাসীকে ভালোবাসতেন। আমি তার সহধর্মিণী, আমি তো ব্যতিক্রম কিছু না তারই একটা অংশ। নরসিংদীবাসীকে আমি ভালোবাসতেই পারি এটা আমার অধিকার। তারাও আমাকে ভালোবাসতে পারে এটাও তাদের অধিকার। আমি সব সময় বলে আসছি নরসিংদীবাসীর সাথে আমার যে সম্পর্ক সেটা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও জানে। নরসিংদীবাসীর সাথে আমার সম্পর্ক হচ্ছে বিনি সুতার মালা। এখানে কোন সুতা লাগেনা। আমরা ফুলে ফুলে মালা হয়ে যাই এমনিতেই। আজ সকালে নরসিংদী ইনডিপেনডেন্ট কলেজ পরিদর্শন ও আমরা করবো জয় অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মসিউর রহমান মৃধার সভাপতিত্বে এ সময় তিনি আরও বলেন, প্রয়াত মেয়র লোকমান নরসিংদীর মানুষকে ভালোবাসতেন। তিনি জীবিত অবস্থায় সবার কি প্রিয় মানুষ ছিলেন ? স্বার্থপর মানুষদের কাছে নিশ্চয় না। তিনি মানুষের সেবা করেছেন। মাদক ও নেশার বিরুদ্ধে কথা বলেছেন। সন্ত্রাসীদের নির্মূলে কাজ করেছেন। যারা স্বার্থপর ছিলেন নিশ্চয় তারা তাকে ভালোবাসতেন না। তার কারনে চাঁদাবাজি ও মাদকের ব্যবসা করতে পারতনা। নিশ্চয় মেয়র লোকমান হোসেন তাদের কাছে ভাল ছিলনা। তিনি নিঃস্বার্থ, সাধারণ ও খেটে খাওয়া মানুষদের কাছে ভাল ছিলেন।নরসিংদীবাসী ঘর থেকে বের হয়ে ভাল রাস্তা পেতনা, রাস্তা ভাঙ্গা ছিল। বৃষ্টি হলে গর্ত হয়ে যেতো। পরে মেয়র লোকমান হোসেন এর জন্য তারা ভাল রাস্তা-ঘাট, প্রসস্থ রাস্তা, সুন্দর সুন্দর চত্বর ও আন্ডারগ্রাউন্ড রাস্তা পেয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা মেয়র লোকমান হোসেন এর মতো একজন অভিভাবক নরসিংদীবাসী পেয়ে সম্পূর্ণ আস্থা রেখেছিল। তিনি তাদের আস্থার জায়গায় ছিলেন। আমি তার সহধর্মিণী হিসেবে যে চিন্তাটা সবসময় করি আমার দ্বারা মানুষের অকল্যাণ যেন কিছু না হয়। সত্যতা, স্বচ্ছতা এবং নরসিংবাসীর ভাগ্য উন্নয়নে আমার যদি কোন অগ্রণী ভূমিকা ও সুযোগ থাকে কাজ করার আমি তাহলে কেন করবনা।তিনি ইনডিপেনডেন্ট কলেজের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আজকে বন্ধু তোমাদের সাথে বিশ্বাস ঘাতকতা করতে পারে। কিন্তু বাবা মা কখনও বিশ্বাস ঘাতকতা করবেনা। কাছের মানুষরাই বিশ্বাসঘাতক হয়। বাবা মা আপন রক্তের ভাই-বোন তোমাদের সাথে কথা বলবেনা, অভিমান করবে। তোমরা একটা বড় ধরনের অন্যায় করেছো তখন কথা বলা বন্ধ করে দিবে। তারপরও তারা এমন কিছু করবেনা তোমরা যেন সমাজে মানসম্মান নিয়ে সমাজে না দাঁড়াতে পারো। কিন্তু বাহিরের মানুষ ঠিকই করবে। অতএব রক্ত চিনার চেষ্টা করো। পরিবারের সম্মান রক্ষার চেষ্টা করবা। তোমরা এমন কিছু কাজ করবানা যেন তোমাদের জন্য বাবা মা ও ভাই বোনের সম্মান নষ্ট হয়ে যায়। তাই পরিবারের মানসম্মান সবার আগে এটা মনে রাখতে হবে তোমাদের।এসময় উপস্থিত ছিলেন, নরসিংদীর পৌর সভার প্যানেল মেয়র ও ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইয়াসমিন সুলতানা, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সুমি সরকার ও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ সহ ইনডিপেনডেন্ট কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীর।

Sharing is caring!