ধামরাইয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় মায়ের অবস্থা আশংকাজনক

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত জুলাই ১১, ২০২০
ধামরাইয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় মায়ের অবস্থা আশংকাজনক
  • জিহাদুল ইসলাম আনসারী
  • বিশেষ প্রতিনিধি ঢাকা জেলা

ধামরাইয়ের ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের উত্তর দিঘলগ্রাম গ্রামে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মারামারি অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় নাসিমা আক্তার(৪৫),মোঃ ইমরান হোসেন(২০) ও আঃ রাশেদ (২৬) গুরুতর আহত হয়েছে। আহতরা উত্তর দিঘলগ্রামের মোঃ মিনহাজ উদ্দিনের স্ত্রী ও ছেলে। এ বিষয়ে গত (১জুলাই) ধামরাই থানায় অভিযোগ করেছেন মিনহাজ উদ্দিন,মামলা নং-১।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উত্তর দিঘলগ্রামের মোঃ মিনহাজ উদ্দিন(৫৫) পিতা মৃত নাজিমুদ্দিন বেপারী ও পাশের বাড়ির মোঃ দেলোয়ার হোসেন (৫৫) পিতা মৃত মেহের বেপারী এর পরিবারের সাথে পারিবারিক পূর্বশত্রুতা ও বিরোধ এর জের ধরে মোঃ দেলোয়ার হোসেন এর স্ত্রী শিউলি ও ছেলে মোঃ তৌহিদুল ইসলাম সহ অজ্ঞাতনামা ২/৩ জন গত (১ জুলাই) ২০২০ তারিখ সকাল আনুমানিক ৯.৩০ মিনিটের সময় ছ্যান,দা,লাঠিসোটা,লোহার রড ইত্যাদি নিয়ে মিনহাজ উদ্দিনের বাড়িতে এসে অশ্লিল ভাষায় গালিগারাজ করে, সে সময় মিনহাজ উদ্দিনের স্ত্রী প্রতিবাদ করলে তাকে এলোপাথারিভাবে মারতে থাকে এ সময় বাড়িতে থাকা মিনহাজ এর দুই ছেলে ইমরান ও রাশেদ মারামারিতে বাধা দিতে আসলে তাদের কে ও মারধর করে।

মারামারি এক পর্যায় মিনহাজ এর স্ত্রী সহ দুই ছেলের মাথা আঘাত করে এবং মাথা ফেটে রক্ত বের হতে থাকে,মারামারি সময় মিনহাজ উদ্দিনের স্ত্রীর গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয় আক্রমন করীরা। পরে মিনহাজ উদ্দিন এর স্ত্রী ও ছেলেদের ডাক চিৎকারে পাড়া প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে,আক্রমন কারীরা করো কাছে অভিযোগ করলে তাদের খুন করে ফেলবে বলে হুমকি দিয়ে চলে যায়,পরে প্রতিবেশীদের সহায়তায় গুরুতর অবস্থায় মিনহাজ উদ্দিন চিকিৎসার জন্য তাদের ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে আসে, প্রাথমিক চিকিৎসার পর অবস্থার অবনতি দেখে কর্মরত চিকিৎসক তাদের কে শহীদ সোহরাওয়াদী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের রেফার্ড করে,হাসপাতালের নেওয়ার পথে তাদের অবস্থা আরো অবনতি দেখে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতাল ভর্তি করা হয়। এখন তারা সাভারের এনাম হাসপাতালের চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ বিষয়ে গতকাল (১০ জুলাই) মোঃ মিনহাজ উদ্দিন জানান -বিবাদী গন অনেক খারাপ লোক তারা যে কোনো সময় আমার এবং আমার পরিবারের বড় ধরনের ক্ষতি করতে পারে,পরিশেষে তিনি সুস্থ বিচার দাবি করে প্রশাসনের নিকট।

এ বিষয়ে ধামরাই থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি দীপক চন্দ্র সাহা বলেন,মামলাটি রেকর্ড হয়েছে, তদন্ত চলছে,আসামীদের ধরার চেস্টা চলছে।

Sharing is caring!