দীর্ঘ ৬ বছর পর মামলার রহস্য উদঘাটন

আওয়ার বাংলাদেশ ডেস্ক ২৪
প্রকাশিত এপ্রিল ১৫, ২০২১
দীর্ঘ ৬ বছর পর মামলার রহস্য উদঘাটন

 

  • মোঃ শফিকুল ইসলাম ভূঞা
  • জেলা প্রতিনিধি মুন্সিগঞ্জ

 

ছয় বছর পরে মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান থানার হত্যা মামলার মূল রহস্য উদঘাটন করেছে মুন্সিগঞ্জের ডিবি পুলিশ। ডিবি পুলিশ হত্যাকাণ্ডে জড়িত তিনজনকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করেন। গ্রেফতারকৃত তিন জন হল সুনীল দাস (৩০), লক্ষণ দাস (৩২), ও মাখন দাস (৩৫)। সুশীল দাস পারিবারিক কলহের জের ধরে গলাটিপে হত্যা করে নন্দনাল দাসের স্ত্রী সুশিলা রানী দাসকে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডিবির ওসি মোঃ মোজাম্মেল হক মামুন।

২০১৫ সালে সিরাজদিখান থানায় নিহত সুশিলা রানী দাসের (১৯) বাবা নন্দলাল দাস একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে মামলাটি সিরাজদিখান থানা পুলিশ দীর্ঘ এক বছরের অধিক তদন্ত করে মামলার চূড়ান্ত রিপোর্ট জমা দেন ২০১৬ সালের ২৮ ডিসেম্বর।

আদালত মামলার চূড়ান্ত রিপোর্টে কিছু ত্রুটি থাকায় মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য সিআইডির কাছে তদন্তের ভার দেন ২০১৭ সালের ৯ মে। মামলাটির দীর্ঘ তিন বছরের অধিক সময় ধরে তদন্ত শেষে সিআইডিও মামলার জট খুলতে না পেরে মামলার চূড়ান্ত রিপোর্ট ২০ সালের ৬ সেপ্টেম্বর জমা দেন।

এ ঘটনায় আদালত সিআইডির দাখিলকৃত চূড়ান্ত রিপোর্টটিও গ্রহণ যোগ্যতা না পাওয়ায় পুনরায় তদন্ত করার জন্য ২১ সালের ৬ জানুয়ারি ডিবি মুন্সিগঞ্জের কাছে হস্তান্তর করেন।

মুন্সিগঞ্জের ডিবি পুলিশ তিন মাস সময়ের মধ্যে হত্যাকাণ্ডের মূল রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হয়েছে। সাথে সাথে ওই মামলার এজাহারনামীয় তিনজন আসামিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। সুনীল দাস (৩০) নিজে হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে বলে দোষ স্বীকার করেন। পরে তিনি আদালতে বুধবার ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

Sharing is caring!