জুতাবক্তাদের রুচি গেল কোথায়?

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২০
জুতাবক্তাদের রুচি গেল কোথায়?

সম্পাদকীয় : গতকাল একটি ওয়াজে বসে এক জামায়াতী বক্তা দেশের সর্বোচ্চ জনগণের হৃদয়ের প্রিয় এক ওয়ায়েজকে নিয়ে অশ্রাব্য গালাগাল ও জুতা দেখানোর ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছে। আমি শুধু ওদের রুচিহীনতা নিয়ে আশ্চর্য হচ্ছি। নয়তো এমন বেয়াদবি ও গোস্তাখির ঘটনা নতুন নয়, বলতে গেলে এই গোস্তাখি ও বেয়াদবির মিরাস নিয়েই ওদের পথচলা। যারা আল্লাহ, রাসূল, সাহাবায়ে কেরাম ও পীর মাশায়েখদের বিষয়ে বেয়াদবির চেতনা লালন করতে পারে, তাদের দ্বারা ওয়াজের মঞ্চে একজন বক্তাকে গালাগাল ও জুতা দেখানো বেশি ব্যথিত হওয়ার কিছু নয়। আমি ভাবি একথা, এমন বেয়াদবি-গোস্তাখি করা এবং এসব সহ্য করা দুটোই রুচিহীনতার পরিচায়ক। এমন রুচিহীনতা ওদের আর কতদিন থাকবে? ওদের রুচিবোধ কবে জাগ্রত হবে? ওরা কখন থেকে রুচিসম্মত খাবার গ্রহণে উদ্যোগী হবে? আচ্চা, ওদের মঞ্চে কি একটাও রুচিমান লোক ছিল না? যার কাছে এগুলো ভাল লাগেনি! নাহ, রুচিমান কেউ থাকলে অবশ্যই তাকে এই অসহ্য রুচিহীন গান্ধা ও নোংরা কাজ থেকে বাধা দিত, নিষেধ করতো। আচ্ছা, ওদের শ্রোতাদের কাতারেও কি একটা রুচিবোধ সম্পন্ন ব্যক্তি ছিলনা? নাহ, এমন কেউ যদি থাকতো; তাকে অবশ্যই সেই মুহুর্তে মেন্টাল ভেবে স্টেজ থেকে নামানোর চেষ্টা করতো। শেষ আরেকটা বিষয় ; ওরা খায় কি? একথা আমার খুব জানতে ইচ্ছে করে! আমরা যেই খাবার খাই, সে খাবার আমাদের দেহ ও আত্মায় রুচিবোধ জাগায়। আমার মনে হচ্ছে, ওদের খাবারের খোঁজ নেয়া দরকার। মনে হচ্ছে ওদের খাবার ও রক্তে মারাত্মক ধরনের ভেজাল রয়ছে। যার কারণে ওদের দেহ ও আত্মার রুচিবোধ মৃতপ্রায়। ওদের বাড়িঘরে ভেজাল বিরুধী অভিযান চালানো উচিৎ।

Sharing is caring!