জাহেলিয়্যাত ও হালিয়্যাত

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত জুন ১৫, ২০২০
জাহেলিয়্যাত ও হালিয়্যাত
  • মুফতি মাহমুদুল হাসান নোমানী

আমরা ইতিহাসের পাতায় জাহেলী যুগের অনেক বিবরণ পড়েছি,বা শুনেছি। সেকালে মানুষ তুচ্ছ বিষয় নিয়ে দাঙ্গা-হাঙ্গামায় লিপ্ত হয়ে যেত, একে অপরকে হত্যা করত। এমনকি নিজে তাতে সক্ষম না হলে পরিবারবর্গ কে হত্যা করার জন্য ওসিয়ত করে যেত।

সে যুগে মানুষ নিজের মেয়েকে জিন্দা কবর রচনা করত। তাদের মাঝে পরস্পর মায়া দয়া বলতে কিছুই ছিল না। এক কথায় তারা এমন কিছু অপকর্মে লিপ্ত থাকতো যার কারণে সে যুগকে জাহেলী যুগ বলা হত।

কিন্তু বর্তমান যুগে আমরা কি দেখছি? আমরা দেখছি মানুষ সচরাচর দিবালোকের ন্যায় একে অপরকে হত্যা করছে, মা বোনকে দিনের আলোতে ধর্ষণ করে পরজগতবাশী করে দিচ্ছে, এখনো মানুষ তুচ্ছ বিষয় নিয়ে দাঙ্গা-হাঙ্গামা লিপ্ত হয়ে যাচ্ছে।

শুধু তাই নয়, হাদীসে এসেছে আলেম-ওলামারা আম্বিয়াদের ওয়ারিশ। তথা সে যুগে সাধারণ জনতা নবীগণকে যেভাবে সম্মান করতো, এ যোগে অল আমাদের কেউ সেভাবে সম্মান করতে হবে।

অথচ আজ কি দেখলাম? আমি প্রতিনিয়তই হয়রান হয়ে যাচ্ছি! মানুষ মসজিদের ইমামকে হত্যা করতে দ্বিধা করছে না। মাদ্রাসা, মসজিদ, আলেম-ওলামা কেউ যেন সাধারণ জনতার আক্রোশ থেকে মুক্তি পাচ্ছে না। এমন এমন আচরণ দৈনন্দিন ঘটে যাচ্ছে যা বর্তমানে জাহিলি যুগকেও হার মানায়।

Image may contain: one or more people and phone                         Image may contain: 1 person, shoes and outdoor                           Image may contain: 1 person, standing and beard

সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ফেনীর ঘটনায় আমি হতবাক, নির্বাক, ও হতভম্ব হয়ে গেলাম! সাধারণ একটি বিষয়ের জের টেনে জাহাঙ্গীর আলম নামক সেই সন্ত্রাসী মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল কে আক্রমণ করতে, ও চুরিকাঘাত করতে একটুও দ্বিধা করলো না।

অনলাইন ও মিড়িয়াতে যা পেয়েছি! তা হল জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে শান্ত ফেনী দারুল ইমান মাদ্রাসায় পড়াশোনা করত। সে সময়ের কিছু বকেয়া বাকি থাকায় প্রিন্সিপাল জাহাঙ্গীর আলমের কাছে সে বকেয়া গুলো তলব করে।

এর জের ধরে সন্ত্রাসী জাহাঙ্গীর প্রিন্সিপাল মামুনুর রশিদের বিভিন্ন পোস্টে নিয়মিত কুরুচিপূর্ণ কমেন্ট করে থাকে, আর প্রিন্সিপাল মামুনুর রশিদ তার সুরুচিপূর্ণ জবাব পেশ করেন। এভাবে চলতে চলতে আক্রোশ হয় সন্ত্রাসী জাহাঙ্গীর মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মামুনুর রশিদ এর উপর হামলা করে সাথে ছুরিকাঘাত করে রক্তাক্ত করে।

এমনকি শান্ত যখন দারুল ঈমানের ছাত্র! তখনো তার বাবা জাহাঙ্গীর মাদ্রাসায় এসে ওস্তাদদের সাথে অশালীন ব্যবহার করতেন। এবং মন্দ ভাবে গালিগালাজ করতেন।

সুতরাং আমরা সরকারের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাবো, যেন সন্ত্রাসী জাহাঙ্গীর কে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হয়।

 

লেখক:-

মুফতি মাহমুদুল হাসান নোমানী

তরুণ লেখক ও কলামিষ্ট

 

লেখকের আরও লিখা পড়তে…. ক্লিক করুন

Sharing is caring!