জাতীয় লেখক পরিষদের আত্মপ্রকাশ: মুফতি জহির সভাপতি, আবদুল গাফফার সেক্রেটারি

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত নভেম্বর ১৬, ২০১৯
জাতীয় লেখক পরিষদের আত্মপ্রকাশ: মুফতি জহির সভাপতি, আবদুল গাফফার সেক্রেটারি

নিজস্ব প্রতিনিধি:

বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ এর মহাপরিচালক মাওলানা জুবায়ের আহমদ চৌধুরী বলেছেন, আর্দশ সমাজ ও দেশ গঠনে আলোকিত মানুষের প্রয়োজন। তিনি বলেন, পবিত্র কুরআন ছিলো বিশ্ব সাহিত্যের উৎস। প্রিয় নবীজির যুগটাই ছিলো সাহিত্যের যুগ। তিনি পৃথিবীর মধ্যে বিশুদ্ধ ভাষি ছিলেন। সাহ্যিত-সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে আমাদের তরুল প্রজন্মকে এগিয়ে আসতে হবে। শনিবার রাজধানীর পুরানাপল্টন¯’ বাংলাদেশ ফটোজার্নালিষ্ট এসোসিয়েশন মিলনায়তনে জাতীয় লেখক পরিষদের আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠান উপলক্ষে আয়োজিত এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। পরিষদের আহবায়ক মুফতি জহির ইবনে মুসলিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, শায়খুল হাদীস মাওলানা শেখ আজিম উদ্দীন, দৈনিক সরকার পত্রিকার সম্পাদক মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী, মাসিক আর্দশ নারীর সম্পাদক মুফতি আবুল হাসান শামসাবাদী, লেখক মাওলানা রুহুল আমীন সাদী,প্রফেসর মাওলানা গোলাম রব্বানী, আলী হাসান তৈয়র। সবার খবর সম্পাদক আবদুল গাফফার ও মাইনুদ্দীন ওয়াদুদের পরিছালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মুফতি গোলাম মাওলা, মাওলানা সৈয়দ শামছুল হুদা, মাওলানা শায়খ উছমান গনী, মাওলানা শহিদুল ইসলাম ফারুকী,মাওলানা কামরুল হাসান রাহমানী, মাওলানা ওবায়দুল্লাহ শাকের, মাওলানা রুহুল আমীন নগরী, মুফতি আফজাল হোসাইন, মাওলানা মামুন চৌধুরী, মহিম মাহফুজ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে মুফতি জহির ইবনে মুসলিমকে সভাপতি, আবদুল গাফফারকে সাধারণ সম্পাদক এবং রুহুল আমীন নগরীকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যনিবাহী কমিটি ঘোষণা করা হয়।

উল্লেখ্যযে, রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন  স্থানের ১৭১ জন নবীন-প্রবীণ লেখকদের মতামতের ভিত্তিতে জাতীয় লেখক পরিষদের আনূষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। পর্যায়ক্রমে দেশের সকল জেলা/মহানগরে পরিষদের শাখা গঠন করা হবে। অনুষ্ঠানে ’’সূচনাপত্র’’ নামে একটি বিশেষ স্মারক প্রকাশিত হয়।

Sharing is caring!