চামড়া শিল্প নিয়ে নৈরাজ্য বন্ধ করুনঃ আজিজুল হক ইসলামাবাদী

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত আগস্ট ২, ২০২০
চামড়া শিল্প নিয়ে নৈরাজ্য বন্ধ করুনঃ আজিজুল হক ইসলামাবাদী

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী আজ রবিবার ০২/০৮/২০২০ ইং এক ববৄতিতে বলেছেন, চামড়া শিল্প নিয়ে দেশে নৈরাজ্য চলছে। কাঁচা চামড়া রপ্তানির সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকার পাচারকারী সিন্ডিকেট হোতাদের নিয়ন্ত্রণের পরিবর্তে সহযোগীর ভূমিকা পালন করছে। দেশের বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে চামড়া বড় একটা খাত। এই খাতকে ধ্বংস করার নীল নকশা হিসেবে চামড়ার দাম নিয়ে সরকার নিজেরাই নৈরাজ্য তৈরি করলো। যার কারণে প্রকৃত দামও পাচ্ছেন না মালিকরা। চামড়ার ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় হাজার হাজার কওমী মাদরাসা, এতিমখানা এবং সমাজের গরীব দুস্থ, অনাথ অসহায় মানুষ মারাত্মকভাবে বঞ্চিত হয়েছে। এজন্য সরকার কোনভাবে এর দায়ভার এড়াতে পারবে না ।
তিনি আরও বলেন, দেশের প্রায় কওমী মাদরাসাগুলো কুরবানীর এই চামড়া কালেকশন করে বিক্রয়লব্ধ আয়ের উপর অনেকাংশে ব্যায় নির্বাহ করে থাকে। মাদরাসার গরীব এতীম দুঃস্থ অসহায় ছাত্র-ছাত্রীরা এর মাধ্যমে উপকৃত হয়। তারা আজ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এটাকে কওমী মাদরাসা ধ্বংসের একটা পরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে আমরা মনে করি। এছাড়া কুরবানীর এই চামড়ার বিক্রির টাকা সরাসরি গরীব অসহায় মানুষের হক। গরীব মানুষের প্রাপ্য হক নিয়ে সরকার খেল তামাশা করছে। গরীব অসহায় মানুষের সাহায্যের পরিবর্তে সরকার সরাসরি তাদের পেটে আঘাত করেছে।

মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী বলেন, চামড়া আমাদের জাতীয় সম্পদ। জাতীয় অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে হলে অবশ্যই চামড়া শিল্পে উন্নয়ন ঘটাতে হবে। এবার লাখ টাকা দিয়ে কেনা কুরবানির গরুর চামড়ার দাম ছিল মাত্র ২শ’ থেকে ৩শ’ টাকা। ১৭ থেকে ১৮ হাজার টাকার খাসির চামড়া মাত্র ৫০ থেকে ৬০ টাকা। জাতীয় অর্থনীতিতে অবদান রাখা একটি গুরুত্বপূর্ণ শিল্প হল চামড়া; অথচ স্মরণকালের মধ্যে সবচেয়ে বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে কোরবানির পশুর চামড়ার বাজার। অসাধু কতিপয় সিন্ডিকেট এর মাধ্যমে দেশের সম্ভাবনাময় চামড়া শিল্পকে যারা ধ্বংসের দারপ্রান্তে নিয়ে যাচ্ছে তাদের আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে। তিনি গরীবের হক বিনষ্টকারী এবং চামড়া শিল্পে নৈরাজ্যে সৃষ্ঠির বিরুদ্ধে জনগনকে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবান জানান।

Sharing is caring!