চট্টগ্রামে সেতু আছে সড়ক নেই :দুর্ভোগে এলাকাবাসি

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত আগস্ট ১৩, ২০২০
চট্টগ্রামে সেতু আছে সড়ক নেই :দুর্ভোগে এলাকাবাসি
  • আলমগীর ইসলামাবাদী
    বিশেষ প্রতিনিধি

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার পূর্ব সাধনপুর ৬ নং ওয়ার্ডের মৌলভী ঘোনা এলাকায় হাজার হাজার মানুষের চলাচলের একমাত্র সড়কটিতে বিগত কয়েক বছর র্পূবে প্রবল বর্ষণে ভেঙে যাওয়া রাস্তাটিতে এখন ব্রীজ আছে কিন্তু রাস্তা নেই।

বাঁশখালী পিএবি প্রধান সড়ক সাধনপুর ইউনিয়নের চারা বটতল থেকে ১ কিলোমিটার পূর্বে গেলেই দেখা যায় প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের মৎস্য চাষ, গরুর খামার ও মুরগীর ফার্মসহ পাহাড়ি এলাকায় কাজ কর্ম করতে এই সড়কটি ব্যবহার করে আসছে। বিগত কয়েক বছর প্রবল বর্ষণেরর কারনে পাহাড়ি ঢলে এই রাস্তাসহ ব্রীজটির প্রায় অংশ ভেঙে যায়। এই থেকে স্থানীয় কয়েক গ্রামের বাসিন্দাদের কষ্ট-বিড়ম্বনার গল্পও নেহায়েত কম নয়। ফলে এই এলাকার স্থানীয় মানুষের একটাই দাবি রাস্তা সহ ব্রীজটি মৌলভী ঘোনার বুকে টেকসই ব্রীজ ও রাস্তাসহ নির্মাণের। অবশেষে এই বছরও ব্রীজটি নির্মানের আশ্বাস নেই বলে দাবি এলাকাবাসীর। তবে এই ব্রীজ ও রাস্তাটি সংস্কার করা হলে পুরো সাধনপুরসহ আশপাশের ৪/৫টি গ্রামের হাজার হাজার মানুষের স্বপ্ন পূরণ হবে।

বিগত কয়েক বছর আগে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে মিনি কালভার্ট স্থাপন করা হলে ও পাহাড়ী ঢলে পানির সাথে কালভার্টটি তলিয়ে যায়, পরবর্তীতে স্থানীয় মোঃ আমিন তার নিজ খরচে নিজেদের জায়গাই পুনরায় আবারো কালভার্ট স্থাপন করে, কিন্তু পরবর্তীতে আবারো পাহাড়ী ঢলে রাস্তাটি দুই পার্শ্বেই ভেঙে কালভার্টটি একটু দেবে যায়। বিগত ২ বছর যাবৎ আর কোন সংস্কার না করায় বর্তমানে শুধুই ব্রীজটি রয়েছে।

তার দাবি, নিজের জমিতে নিজ খরচে ব্রীজ নির্মাণ করেছিলাম। নিজেদের চলাফেরা করার জন্য। তবে সেই ব্রীজ দিয়ে প্রতিনিয়ত চলাফেরা করত স্থানীয় হাজারো মানুষ। গত বছর পাহাড়ী ঢলে ব্রীজ এবং সড়কটি সহ ভেঙে গেলে আর কেহ এই রাস্তা এবং ব্রীজটি সংস্কার করেননি। তার জমির ঠিক উত্তর দিকেই সরকারি খাস জমিতে রাস্তা এবং ব্রীজটি পুনরায় নির্মাণ করলে এলাকার এবং স্থানীয়দের অনেক উপকার হবে বলে তিনি জানান।

সাধনপুর ৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল হক জানান, ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে স্থানীয়রা চলাফেরা করার জন্য ছোট কালভার্ট (নাসি) বসিয়েছিলাম, পাহাড়ী ঢলে সেগুলো তলিয়ে যায়,পরবর্তীতে স্থানীয় আমিন একটি মিনি ব্রীজ নির্মাণ করলেও ফের সেই ব্রীজটির দুই পার্শ্বের রাস্তাটি ভেঙে যায়। রাস্তাটি সংস্কার এবং নতুন করে ব্রীজটি নির্মাণ করার জন্য মাসিক মিটিং এ আমরা প্রস্তাব করেছি। খুব শীগ্রই কাজ শুরু হবে। তবে ব্রীজ এবং রাস্তাটি একটু উত্তর পার্শ্বে হবে বলে তিনি জানান।

Sharing is caring!