চট্টগ্রামে দুই স্কুল ছাত্রীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত মে ২৪, ২০২০
চট্টগ্রামে দুই স্কুল ছাত্রীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ
  • আলমগীর ইসলামাবাদী
  • চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধি

চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে সিনেমা স্টাইলে প্রকাশ্যে দিবালোকে বাজার থেকে দুই কিশোরীকে তুলে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করলো আট দুর্বৃত্ত।

ঘটনার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই মূল হোতা পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছেন। নিহত মো. হেলাল উদ্দিন (৩০) উপজেলার পশ্চিম ভুজপুর এলাকার জাফর আলমের ছেলে।

শনিবার গভীর রাতে উপজেলার ভুজপুর থানার আন্ধারমানিক গলাচিপার টেক এলাকায় এই বন্দুকযুদ্ধ হয়েছে বলে জানান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শেখ আব্দুল্লাহ ।

তিনি আওয়ার বাংলাদেশ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, শনিবার সকালে কাজীরহাট বাজার থেকে ফেরার পথে দুই খালাতো বোনকে হেলালের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী অপহরণ করে। কিশোরীদের এক জন সপ্তম শ্রেণী এক জন অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী।

প্রকাশ্যে তাদের মোটরসাইকেলে তুলে দশ কিলোমিটার দূরে টিলায় নিয়ে যায়। আন্ধারমানিক গলাচিপার টেক এলাকার মনসুরের টিলায় আট জন মিলে সকাল দশটা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত এ দুই স্কুল ছাত্রীর উপর পাশবিক নির্যাতন চালায় । পরে অঢেত অবস্থায় তাদের জঙ্গলে ফেলে যায়।

খবর পেয়ে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়। এই ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে থানায়। জড়িত আটজনের মধ্যে ছয়জনকে তারা চিনতে পেরেছে। বাকি দুজন অপরিচিত ছিল। মামলার এজাহারে হেলালকে প্রধান আসামি করে বাকি ছয়জনের নাম উল্লেখ করা হয়। বাকি দুজন অজ্ঞাতনামা হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

ওসি জানান , ঘটনা জানার পর থেকেই তাদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু হয়। রাতে মূল হোতা হেলালসহ তিন জনকে গ্রেফতার করা হয়। হেলালকে নিয়ে অন্য আসামি গ্রেফতার করতে আন্ধারমানিক এলাকায় অভিযানে গেলে তার সহযোগীরা গুলি করে। এ সময় পুলিশ দশ থেকে বারো রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে। গোলাগুলির ঘটনায় হেলাল মারা গেছেন। এজাহারভুক্ত আরও দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, একটি কিরিচ, চারটি গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। হেলালের বিরুদ্ধে ভুজপুর থানায় ডাকাতির মামলাও আছে। দুই স্কুল ছাত্রীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

Sharing is caring!