চট্টগ্রামে এক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত আগস্ট ৩, ২০২০
চট্টগ্রামে এক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা

আলমগীর ইসলামাবাদী
বিশেষ প্রতিনিধি

চট্টগ্রামের প্রথমসারির সংবাদপত্র দৈনিক পূর্বদেশের স্টাফ রিপোর্টার ফারুক আব্দুল্লাহ’র বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেছেন মোরশেদুল আলম নাজিম নামে বাঁশখালীর সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর এক অনুসারী। রবিবার (২ আগস্ট) রাতে যুবলীগ কর্মী পরিচয় দেওয়া মোরশেদুল আলম নাজিম বাঁশখালী থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার এজাহারে মোরশেদুল আলম নাজিম অভিযোগ করেছেন, সাংবাদিক ফারুক আব্দুল্লাহ ফেসবুকে সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলছেন।

বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম মজুমদার বলেন, সাংবাদিক ফারুক আব্দুল্লাহ ফেসবুকে সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলছেন এমন অভিযোগ এনে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেছেন মোরশেদুল আলম নাজিম নামে এক যুবলীগ কর্মী। আমরা বিষয়টি তদন্ত করছি।

গত ২৬ জুলাই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান বাঁশখালীর বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. আলী আশরাফ। তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের প্রথম প্রতিবাদকারী হিসেবে পরিচিত শহীদ মৌলভী সৈয়দের বড় ভাই। একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করা হয়। এরপর ২৭ জুলাই বাঁশখালীর শেখেরখীল এলাকায় ডা. আলী আশরাফের নামাজে জানাযায় দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করেও উপজেলা প্রশাসন থেকে এই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে গার্ড অব অনার দেয়ার কোনো উদ্যোগ না দেখে স্থানীয়দের দাবির মুখে জানাজার নামাজ শেষে গার্ড অব অনার ছাড়াই দাফন করা হয় মুক্তিযোদ্ধা ডা. আলী আশরাফকে। এ ঘটনায় স্থানীয়রা বিক্ষোভ করে। বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ে পুরো চট্টগ্রামে। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড ও মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তান কমান্ডসহ বিভিন্ন সংগঠন, স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ মানববন্ধনসহ বিভিন্ন প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করে। পরে জানা যায়, স্থানীয় সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর হস্তক্ষেপে স্থানীয় প্রশাসন এই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে নিয়ম অনুযায়ী গার্ড অব অনার প্রদান থেকে বিরত থাকে।

ডা. আলী আশরাফ শেখেরখীল ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার ও বাঁশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক। ডা. আলী আশরাফ বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী শহীদ মৌলভী সৈয়দের বড় ভাই।

২৭ জুলাই বাঁশখালীর সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর বক্তব্যের বরাত দিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ পরিবেশন করা হয়। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী দাবি করেছেন, ‘বাঁশখালীতে কোনো মুক্তিযুদ্ধ হয়নি। সেখানে কোনো মুক্তিযোদ্ধাও নেই’। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এমপি মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর এমন বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানহানি হয়েছে দাবি করে ২৯ জুলাই চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এমপিকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করেন চট্টগ্রামের মুক্তিযোদ্ধারা।
সেইসঙ্গে তার অপসারণ ও শাস্তির দাবিও জানান তারা। একইসঙ্গে বিষয়টিতে মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিও আকর্ষণ করা হয়।

সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর বক্তব্যের বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ করেন মুক্তিযোদ্ধা ডা. আলী আশরাফের আত্মীয় সাংবাদিক ফারুক আব্দুল্লাহ। বাঁশখালীতে সংসদ সদস্যপ্রার্থী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক মুজিবুর রহমান সিআইপির সাথে রাজনীতি করার কারণেই মূলত ডা. আশরাফকে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা ‘গার্ড অব অনার’ দেয়া থেকে বিরত রাখতে ভূমিকা রাখেন স্থানীয় সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী।

Sharing is caring!