কে এই ডাক্তার জাকির নায়েক?

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত মে ২৩, ২০২০
কে এই ডাক্তার জাকির নায়েক?
  • আলমগীর ইসলামাবাদী

 

 

ডাক্তার জাকির নায়েকের পরিচয়:

ডাক্তার জাকির নায়েক ভারতের প্রসিদ্ধ মুম্বাই শহরে হাজার ১৯৬৫ সালের ১৮ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন। তিনি মুম্বাইয়ের খ্রিস্টান মিশনারী স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন। অতঃপর মুম্বাইয়ের হিন্দুদের পরিচালিত কৃষ্ণচন্দ্র চলের রাম কলেজ থেকে এফ.এস.সি পাস করেন।

তারপর মুম্বাইয়ের ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ থেকে এম.বি.বি.এস ডিগ্রি অর্জন করেন। শৈশব থেকেই হিন্দুদের সাথে তার ঘনিষ্ঠতা বেশি ছিল । তিনি হিন্দুদের কলেজে পড়ে এতোই প্রভাবান্বিত হন যে,সম্রাট আকবরের নতুন ধর্মে দ্বীন-ই-ইলাহির মত সব ধর্মের সমন্বয় সাধনের শিক্ষা গ্রহণ করেন।

জীবনের সূচনা লগ্ন থেকেই হিন্দু খ্রিস্টানদের সাথে তার সখ্যতা থাকার কারণে তার বাস্তব জীবনে হিন্দুয়ানী সংস্কৃতি পরিলক্ষিত হয়। তিনি হিন্দুদের কৃষ্টি-কালচার ধারা বেশি প্রবাবিত হয়। আর তাদের স্পর্শ থাকার কারণে তার চিন্তা ধারণা ও মন-মানসিকতার হিন্দু খ্রিস্টানদের প্রভাব সুস্পষ্ট।আর তার লেবাস-পোশাক সিরাত সুরাত একথা সুস্পষ্ট প্রমাণ বহন করে।

তিনি কোন দিনই মক্তব-মাদ্রাসা বা খানকায়ে লেখাপড়া করেননি বা কোন হক্কানী আলেমের কাছে গিয়ে দ্বীনি এলেম চর্চা করেন নি। শৈশব থেকেই যৌবন পর্যন্ত ছাত্র জীবনের লম্বা সময় অতিবাহিত হয়েছে স্কুল-কলেজে। নিজে নিজে কুরআন হাদিসের বিভিন্ন কিতাবে অধ্যায়ন করে ইসলামী চিন্তাবিদ হিসেবে নিজেকে জাতির সামনে পেশ করেছেন।

এজন্য তাফসীর বির রায় তথা মনগড়া তাফসীর করা তার অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। ইলমে হাদীসের পরিভাষা সম্পর্কে তার ধারণা নেই বললেই চলে। গায়রে মুকাল্লিদের প্রচার-প্রসার তার মূল উদ্দেশ্য বলে মনে হয় ।

তিনি ইয়াযীদের ভক্ত এবং ইয়াযীদের নামের পাশে রাহমাতুল্লাহি আলাইহি লিখতে ভালোবাসেন। বিশিষ্ট ইসলাম প্রচারক, ধারক ও বাহক ডা. আহমাদ দীদারের সাথে হাজার ১৯৯৪ সালে মুম্বাই শহরে তার সাক্ষাৎ হয়।

তিনি তার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে তার ভক্ত প্রণীত হন এবং ডাক্তারি পেশা বাদ দিয়ে ইসলামী দাওয়াতী কার্যক্রম শুরু করেন।

কে এই জাকির নায়েক??

জাকির নায়েকের প্রচারাভিযানের নৈপুণ্য রয়েছে দুটি পুরান বাতিল মতবাদ ;যেগুলোকে তার নতুন ভঙ্গির পর্দার আড়াল করা হয়েছে।

মতবাদ দুটি হলো: ক.তথাকথিত সালাফী মতবাদ। খ.মওদুদী মতবাদ।

 

 

[আওয়ার বাংলাদেশের মতামত বিভাগে প্রকাশিত যে কোনো লেখার দায় লেখকের নিজের। আওয়ার বাংলাদেশের সম্পাদনা পরিষদ এ লেখার দায় গ্রহণ করে না। তাই এই লেখার জন্য আওয়ার বাংলাদেশের সম্পাদনা পরিষদকে দায়ী করবেন না। মত প্রকাশের স্বাধীনতা হিসেবে আওয়ার বাংলাদেশের সম্পাদনা পরিষদের নীতির সাথে অসামঞ্জস্য লেখাও এখানে প্রকাশ করা হয়ে থাকে। কেবল ধর্ম এবং রাষ্ট্রবিরোধী কোনো লেখা প্রকাশ করা হয় না। চাইলে আপনিও তথ্য বা যুক্তিসমৃদ্ধ লেখা এখানে পাঠাতে পারেন।]

Sharing is caring!