কুশাখালীতে মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে ছাত্রদের সাঁকো পারাপার

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০
কুশাখালীতে মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে ছাত্রদের সাঁকো পারাপার

এমএমবি আকরাম ভূঁইয়া, চন্দ্রগঞ্জ থানা (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি:

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ১৮ নং কুশাখালী ইউনিয়নের শান্তিরহাট বাজার থেকে ১ কিঃমিঃ পূর্বে কুশাখালী গ্রাম এবং মদনা গ্রামের মাঝে অবস্থিত এই সাঁকো। এই সাঁকোটি মদনা গ্রাম এবং কুশাখালী গ্রামের মাঝে দ্রুত যোগাযোগব্যবস্থার অন্যতম মাধ্যম। সাঁকোটি উত্তর মদনা এবং কুশাখালী গ্রামের মাঝে হওয়ায় কোনো ইউ.পি মেম্বার এই সাঁকোটির সংস্কারে এগিয়ে আসতে দেখা যায়নি, এই সাঁকোটির পশ্চিম পাড়ে রয়েছে একটি মাদ্রাসা ও একটি মসজিদ। বর্ষার মৌসুমে মাদ্রাসার ছেলে মেয়েরা প্রতিদিন শতভয় কে বুকে নিয়ে পারাপার হতে হয় ভয়ংকর সাঁকো এই সাঁকো দিয়ে। শিক্ষার্থীরাও স্বপ্ন দেখে একটি ব্রিজের কিন্তু দুঃখ জনক বিষয় হচ্ছে স্বাধীনতার পর থেকে এই পর্যস্ত এখনো এই সাঁকোটি সাঁকোই থেকে গেলো। বিভিন্ন শ্রেণী বিভাগের সরকারি কর্মকর্তাগণ এবং প্রতিদিন ৪০০-৫০০ মানুষের যাতায়াতের মাধ্যম হিসেবে এই সাঁকোটি উল্লেখযোগ্য। উক্ত এলাকার অালোর পথ যুব সংঘ নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রতিবারই সাঁকোটি মেরামত করে থাকেন। জাতীয় নির্বাচন এবং ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের সময় প্রার্থীরা নির্বাচনে জয়যুক্ত হলে এই ব্রিজ করে দিবে বলে প্রতিশ্রুতি দেয়, কিন্তু নির্বাচনের পর প্রার্থীরা সব ভুলে যায়। প্রার্থীরা এই এলাকার জনসাধারণকে ব্রিজের স্বপ্ন দেখিয়ে এসেছেন কিন্তু এলাকাবাসির স্বপ্ন ঘুমের ঘরেই থেকে যাচ্ছে দিনের পর দিন। ১৮নং কুশাখালীতে বহু রূপকার এসেছেন কিন্তু কেউ কথা রাখতে পারেনি। স্থানীয় সামাজ কর্মী এম রুবেল হাওলাদার জানান উক্ত এলাকার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন অালোর পথ যুব সংঘ এবং এলাকাবাসির একটাই চাওয়া অন্ততপক্ষে এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে যারাই বিজয়ী হবেন তারাই এই ব্রিজ গড়ার মহানায়ক হিসেবে সাধারণ মানুষের মনে যায়গায় করে নিবেন বলে এলাকাবাসির বিশ্বাস।

 

Sharing is caring!