করোনার নমুনা পরীক্ষার ফল দ্রুত দেয়ার তাগিদ

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত জুন ৩, ২০২০
করোনার নমুনা পরীক্ষার ফল দ্রুত দেয়ার তাগিদ

বাংলাদেশে মহামারি করোনাভাইরাসে প্রাণহানি ও আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। সর্বশেষ সরকারি হিসাব অনুযায়ী- বুধবার পর্যন্ত করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৪৬ জনে। আর আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৫ হাজার ১৪০ জনে।

পরিস্থিতি যে এমন হবে তা নিয়ে আগেই আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। রপ্তানিমুখী পোশাক কারখানা খুলে দেয়া, ঈদের ছুটিতে বিপুল সংখ্যক মানুষকে রাজধানীসহ পার্শ্ববর্তী করোনা কবলিত এলাকা থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যাতায়াতের সুযোগ করে দেওয়া এবং সর্বশেষ লকডাইন শিথিল করে গণপরিবহন চালু করার কারণে যে এরকম ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হবে তেমন আশঙ্কা ব্যক্ত করেছিলেন সরকারের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও রোগ গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইউডিসিআর’র সাবেক বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডাক্তার মোস্তাক হোসেনসহ অনেকেই।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, সন্দেহভাজন রোগীর নমুনা পরীক্ষার ফল পেতে দেরি হলে সে যদি পজিটিভ হয় তাহলে পরিবারে সংক্রমণের ঝুঁকির আশঙ্কা থাকে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলামও বলেন, নমুনা পরীক্ষার ফলাফল দেরিতে দেয়ার বিষয়টি কোনোভাবেই কাম্য নয়।

নমুনা পরীক্ষার কাজটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করে দ্রুত রিপোর্ট জানানো উচিত বলে অভিমত দেন আইইডিসিআর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এএসএম আলমগীর।

এদিকে, রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন করোনা রোগীরা নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহ পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতদিন সিলিন্ডারের অক্সিজেনের মাধ্যমে পরিস্থিতি সামাল দেয়ার চেষ্টা করা হলেও বর্তমানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে সীমিত সংখ্যক সিলিন্ডার দিয়ে সব রোগীকে পর্যাপ্ত ও নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। এই অবস্থায় সব হাসপাতালগুলোতে লিকুইড অক্সিজেন ট্যাংক স্থাপনের জন্য চিঠি দিয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ রোগী সাধারণ ওষুধ খেয়েই সুস্থ হয়ে ওঠেন। কিন্তু অবশিষ্ট ১০ শতাংশ রোগীদের মধ্যে অনেকের হালকা থেকে তীব্র শ্বাসকষ্ট হয়। এ সময় রোগীদের অক্সিজেনের লেবেল কমে যায়। তাই এ ধরনের রোগীদের জন্য নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহ করাই হলো মূল চিকিৎসা। এক্ষেত্রে ব্যত্যয় ঘটলে রোগীর মৃত্যুও হতে পারে।

এ অবস্থায় দেশের প্রত্যেক জেলা হাসপাতালে স্বয়ংসম্পূর্ণ নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) স্থাপন দ্রুত নিশ্চিতের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সাথে স্থিতিশীল ও পর্যাপ্ত অক্সিজেন সরবরাহ নিশ্চিত করা এবং ভেন্টিলেটর সুবিধা  দিতেও নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রী।

গতকাল (মঙ্গলবার) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশনা দেন।

Sharing is caring!