আম্ফান থেকে আত্মরক্ষায় ৩০ লাখ মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্র নেওয়ার প্রস্তুতি

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত মে ১৮, ২০২০
আম্ফান থেকে আত্মরক্ষায়  ৩০ লাখ মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্র নেওয়ার প্রস্তুতি

আওয়ার বাংলাদেশ ডেস্ক

উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’। আগামীকাল মঙ্গলবার (১৯ মে) খুলনা থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত উপকূল এলাকায় আঘাত হাততে পারে এটি। এ আশঙ্কায় সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি থেকে বাঁচতে  উপকূলীয় ১৯টি জেলায় সাত হাজার আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে আবহাওয়া অফিসের পক্ষ থেকে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৪ (চার) নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। ৭ নম্বর সংকেত দিলেই সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়া শুরু হবে।

আজ সোমবার (১৮ মে) দুপুরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, এর আগে ঘূর্ণিঝড় ফনি-তে ১৮ লাখ এবং বুলবুল’র সময় ২০ লাখ মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়া হয়েছিল। এবার আম্ফান থেকে আত্মরক্ষায়  ৩০ লাখ মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, উপকূলীয় এলাকায় কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনীকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবকরা মানুষকে সতর্কতামূলক মাইকিং শুরু করেছেন। আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়ার ক্ষেত্রে গর্ভবতী নারী, শিশু ও বৃদ্ধদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আগের চেয়ে তিনগুণ বেশি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট ডিসি ও ইউএনও-দের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে স্থানীয় স্কুল-মাদরাসাকেও আশ্রয়কেন্দ্রের আওতায় আনা হবে।

সূত্র মতে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সোমবারই আশ্রয়কেন্দ্রের জন্য শুকনো খাবার, শিশুখাদ্যসহ পর্যাপ্ত ত্রাণ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগ থেকে বলা হয়েছে ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে মানুষের প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা ও খাবারের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

Sharing is caring!