আজ মহান বিজয় দিবস

আওয়ার বাংলাদেশ ডেস্ক ২৪
প্রকাশিত ডিসেম্বর ১৬, ২০২০
আজ মহান বিজয় দিবস

আজ ১৬ ডিসেম্বর- মহান বিজয় দিবস, বাঙালির পরাধীনতার শৃঙ্খলমুক্তির দিন। এবার ৪৯ পেরিয়ে বিজয়ের ৫০ বছরে পড়লো বাংলাদেশ। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করা হবে আগামী বছর। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের পর একাত্তরের এই দিনে ঢাকায় রেসকোর্স ময়দানে পাকিস্তানি সেনারা যৌথ বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। বিশ্বের মানচিত্রে অভ্যুদয় ঘটে স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র বাংলাদেশের।মুক্তিযুদ্ধে সব দিক থেকে কোণঠাসা হয়ে গেলে একাত্তরের ১৬ই ডিসেম্বর বিকেলে ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে মুক্তিবাহিনী ও ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় সেনা কমান্ডের যৌথ নেতৃত্বের কাছে আত্মসমর্পণ করে পাকিস্তানি বাহিনী। লাল সবুজ পতাকা ওড়ে স্বাধীন ভূমিতে নতুন দেশে।বাঙালির মুক্তি এসেছে অনেক রক্ত ঝরিয়ে, শোষণ-বঞ্চনা আর যন্ত্রণার শেষে লাখো মানুষের আত্মাহুতি ও বাংলা মায়ের আত্মদানের বিনিময়ে।দ্বিজাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সৃষ্টি হলেও তা যে টিকবে না আঁচ করেছিলেন অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষক। তারপর পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকদের নিপীড়ন-নির্যাতন পূর্ব পাকিস্তানের মানুষের স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষাকে প্রবল করে তোলে।বায়ান্নোর ভাষা আন্দোলনের ধারবাহিকতায় যে স্বাধিকার চেতনার স্ফুরণ ঘটে, তা রূপ নেয় মুক্তিসংগ্রামে। স্বাধীনতাযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে পুরো জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে তোলেন বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।এরপরই একাত্তরের ২৫ মার্চ কালরাতে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর বর্বরতম আক্রমণ চালায় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী। চলে নির্বিচার গণহত্যা। সেদিন রাতেই গ্রেপ্তারের আগে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন বঙ্গবন্ধু। শুরু হয় সশস্ত্র সংগ্রাম।নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদের রক্তে অর্জিত হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতা। লাল সবুজের পতাকা ওড়ে সার্বভৌম রাষ্ট্রে। তলাবিহীন ঝুড়ি আখ্যা দিয়ে যারা অপমান করেছিল, অর্ধশতাব্দী পর তাদের কণ্ঠেই এখন বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা।নানামুখী উন্নয়নে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ, বাড়ছে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি। দারিদ্র্য আর দুর্যোগ মোকাবিলা কোরে এখন উন্নয়নশীল দেশের কাতারে বাংলাদেশ।

Sharing is caring!