আইএস’র টুপি মাথায় দিয়ে আদালতে হলি আর্টিজানের আসামি

আওয়ার বাংলাদেশ
প্রকাশিত নভেম্বর ২৭, ২০১৯
আইএস’র টুপি মাথায় দিয়ে আদালতে হলি আর্টিজানের আসামি

বিশেষ প্রতিনিধি:

রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলার মামলার সাত আসামির মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। বুধবার (২৭ নভেম্বর) ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান এ রায় দেন। আদালতের হাজতখানা থেকে দুপুর ১২টার দিকে আসামিদের আদালতে তোলা হয়। রায় শেষে আদালতের এজলাস থেকে বের হয়ে যেতে যেতে আসামিদের মধ্যে থেকে একজন বলেন, ‘আমরা কুরানের সৈনিক, আমাদের কোনো ভয় নেই’। এসময় একজনের মাথায় আইএস এর লোগোসহ টুপি দেখা যায়। এসময় উপস্থিত সাংবাদিকরা তাদের ‘টুপি কোথায় পেলেন’ জানতে চাইলে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা ‘কোনো প্রশ্ন করা যাবে না’ বলে সাংবাদিকদের সরিয়ে দেন। আদালতে তোলার সময় আসামি আসলাম হোসেন র‌্যাশ ‘ভি’চিহ্ন দেখান। তাদের মধ্যে অধিকাংশের মুখেই হাসি ছিল। আসামি জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে রাজীব গান্ধীও হাসিমুখে ছিলেন। দুপুর ১২টা ৫ মিনিটের দিকে বিচারক রায় পড়া শুরু করেন। আসামিদের উপস্থিতিতে বিচারক এ রায় ঘোষণা করেন। আদালত আদেশে উল্লেখ করেন, জাহাঙ্গীর হোসেন, আসলাম হোসেন র‌্যাশ, হাদিসুর রহমান সাগর, রাকিবুল হাসান রিগ্যান, মো. আব্দুল সবুর খান, শরিফুল ইসলাম খালেদ ও মামুনুর রশীদ রিপনকে সন্ত্রাসবিরোধী আইন ২০০৯ এর ৬ (২) (অ) ধারায় দোষী সাব্যস্ত করা হলো। তাদের প্রত্যেককে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করা হলো এবং ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডে দণ্ডিত করা হলো। মৃত্যু নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত তাদের গলায় ফাঁসি দিয়ে ঝুলিয়ে রেখে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার নির্দেশ দেয়া হলো। দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ জঙ্গি হামলা মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে আজ। মামলায় ২১১ জন সাক্ষীর মধ্যে বিভিন্ন সময়ে ১১৩ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন। তিন বছর চার মাস পর আজ এই রায় প্রদান করা হয়েছে । দুপুর পৌনে ১২টার দিকে আসামিদের এজলাসে উঠানো এবং দুপুর ১২টার দিকে রায় ঘোষণা করা হয়েছে। রায় ঘোষণার পর আদালত থেকে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Sharing is caring!